তাজমহলের ২২টি রহস্যময় বন্ধ দরজা খুলতে এলাহাবাদ হাইকোর্টে আবেদন

100
তাজমহলের ২২টি রহস্যময় বন্ধ দরজা খুলতে এলাহাবাদ হাইকোর্টে আবেদন
তাজমহলের ২২টি রহস্যময় বন্ধ দরজা খুলতে এলাহাবাদ হাইকোর্টে আবেদন

বারাণসীর জ্ঞানব্যাপী মসজিদ, কাশী-বিশ্বনাথের মন্দির নিয়ে বিতর্কের পরে; এবার আগ্রার তাজমহলও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। ইতিমধ্যেই তাজমহল নিয়ে এলাহবাদ হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চে; একটি আবেদন দাখিল করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে, তাজমহলের ২২টি ঘরই খুলে দিতে হবে; কারণ সেখানে হিন্দুদের দেবদেবীর মূর্তি ও শিলালিপি রয়েছে বলেই দাবি।

মুঘল সম্রাট শাহজাহান, স্ত্রী মমতাজের স্মরণে; যমুনার তীরে সাদা মার্বেল দিয়ে তাজমহল বানিয়েছিলেন। পারস্য, ভারতীয় ও ইসলামিক স্থাপত্যের অনন্য মিশ্রণে তৈরি তাজমহলকে; প্রেমের নির্দশনও বলা হয়। কিন্তু বিরোধ ছিল সেই সময় থেকেই। কোন কোন মহল থেকে দাবি করা হয়; তাজমহল আসলে হিন্দুদের বিশ্বাসের কেন্দ্র। যা নিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চে; বিজেপির মিডিয়া ইনচার্জ আবেদন দাখিল করেছেন।

আবেদনকারী আবেদনে বলেছেন, তাজমহলের ভিতরের ২২টি ঘরই; খোলার অনুমতি দেওয়া উচিত। কারণ সেখানে হিন্দু ভাস্কর্য কিংবা শিলালিপি আছে কিনা; তা যাচাই করে দেখা উচিত। হাইকোর্টের কাছে দাবি জানানো হয়েছে; এএসআই এবং ইতিহাসবিদদের সমন্বয়ে একটি ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং কমিটি গঠন করে তদন্ত করতে হবে।

বিতর্ক শুরু হয়েছে; ইতিহাসবিদ পিএন ওকের লেখা ‘ট্রু স্টোরি অফ তাজ’ বইটি নিয়ে। ওই বইয়ে তাজমহলকে শিবমন্দির বলে; উল্লেখ করা হয়েছে। হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চে; আবেদন করেছেন বিজেপি কর্মী ডাঃ রজনীশ। এই আবেদনে তাজমহলকে শিবমন্দির বা তেজো মহালয়া বলে দাবি করা হয়েছে। তাজমহলের বেসমেন্টে ২২টি কক্ষর মধ্যে; ২০টি খোলার অনুমতির জন্য পিটিশন দায়ের হয়েছে।

আবেদনকারী বলেছেন যে, তিনি জানতে পেরেছেন; ২০টি ঘরে তেজো মহালয়ার প্রমাণ রয়েছে। এটি একটি শিবমন্দির নাকি সমাধি; তা পরিষ্কার হওয়া উচিত। বন্ধ দরজা খুলে দিলে; এই বিরোধ চিরতরে চাপা পড়ে যাবে। আদালত আবেদনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে, তবে বিশেষজ্ঞদের মতে; তাজের এই ২২টি বন্ধ দরজা খোলা সহজ হবে না। তাজের বন্ধ দরজা খুলতে অনেক বাধা রয়েছে।

প্রথমত, ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ মর্যাদাসম্পন্ন একটি বিল্ডিং টেম্পারিংয়ের জন্য; কোটি-কোটি টাকা এবং উচ্চ-পর্যায়ের বিশেষজ্ঞদের অনেক দল লাগবে। দ্বিতীয় কারণটি হল, তাজমহল একটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্মৃতিস্তম্ভ; তাই ইউনেস্কোও এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবে। কিন্তু ২২টি দরজা বন্ধ কেন? সেটা এখনও কেউ জানেন না। তাজমহলের বন্ধ দরজার পেছনের রহস্য কী; তা খোলার পরই জানা যাবে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন