বিজেপির মুখে হাসি, শিবসেনার নির্বাচনী প্রতীক কেড়ে নিল নির্বাচন কমিশন

84
বিজেপির মুখে হাসি, শিবসেনার নির্বাচনী প্রতীক কেড়ে নিল নির্বাচন কমিশন
বিজেপির মুখে হাসি, শিবসেনার নির্বাচনী প্রতীক কেড়ে নিল নির্বাচন কমিশন

বিজেপির মুখে হাসি, শিবসেনার নির্বাচনী প্রতীক কেড়ে নিল নির্বাচন কমিশন। উদ্ধব ঠাকরে-একনাথ শিন্ডে লড়াই, যার জেরে শিবসেনার দলীয় প্রতীক ‘তীর ধনুক’ বাজেয়াপ্ত করার ঘোষণা করল নির্বাচন কমিশন। মহারাষ্ট্রে উদ্ধব ঠাকরে গোষ্ঠী এবং একনাথ শিন্ডে গোষ্ঠীর মধ্যে, রাজনৈতিক লড়াই ও টানাপোড়েন এখনও অব্যহত। পুরো পরিস্থিতি দেখে এবার শিবসেনার দলীয় প্রতীক, বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিল, নির্বাচন কমিশন। ১০ অক্টোবর বেলা ১টার মধ্যে, দুই শিবিরকেই নিজেদের নিজস্ব দলীয় প্রতীক, জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্তের অর্থ, রাজনৈতিক মহলে মোটামুটি স্পষ্ট। আগামী ৩ নভেম্বর অন্ধেরি পূর্ব নির্বাচনী কেন্দ্রে যে উপনির্বাচন হওয়ার কথা, তাতে ঠাকরে শিবির বা শিন্ডে শিবির কেউই শিবসেনার নিজস্ব ‘তীর-ধনুক’ প্রতীক ব্যবহার করতে পারবে না। মাসচারেক আগে তৎকালীন ক্ষমতাসীন শিবসেনা দল থেকে বেরিয়ে, বিজেপির সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছিলেন একনাথ শিন্ডে। বিজেপির সঙ্গে যৌথভাবে ক্ষমতায় আসে, একনাথ শিন্ডে-র দল। নতুন মুখ্যমন্ত্রী হন শিন্ডে।

তাঁর দাবি ছিল, তিনি-ই অকৃত্রিম শিবসেনা। যদিও সেই দাবি খারিজ করে দেন সদ্য প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। শুরু হয় শিবসেনার দলীয় প্রতীক নিয়ে তরজা। এদিন অন্তর্বর্তী নির্দেশ দিয়ে নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দেয়, “দুই শিবিরকেই উপ-নির্বাচনের জন্য আলাদা প্রতীক দেওয়া হবে”। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত ‘ফ্রি সিম্বল’-র তালিকা থেকে, দুই শিবিরকে প্রতীক দেওয়া হবে। সেই মর্মেই ১০ অক্টোবর বেলা ১টার মধ্যে, দু-পক্ষকেই নিজেদের প্রতীক জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন