অক্টোবর ১০, লক্ষ্মী পুজোর দিন শুরু হয়েছিল নোয়াখালীর ‘হিন্দু নি’ধন’ যজ্ঞ

155
অক্টোবর ১০, লক্ষ্মী পুজোর দিন শুরু হয়েছিল নোয়াখালীর 'হিন্দু নি'ধন' যজ্ঞ
অক্টোবর ১০, লক্ষ্মী পুজোর দিন শুরু হয়েছিল নোয়াখালীর 'হিন্দু নি'ধন' যজ্ঞ

অক্টোবর ১০, লক্ষ্মী-পুজোর দিনই শুরু হয়েছিল নোয়াখালীর ‘হিন্দু-নি’ধন’ যজ্ঞ। সেদিন-টাও ছিল কোজাগরী-লক্ষীপূজা, অবিভক্ত বাংলার হিন্দুরা ছিলেন, মা-লক্ষ্মীর আরাধনায় ব্যস্ত। অবিভক্ত-বাংলার দক্ষিণ-পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত, নোয়াখালী জেলার সংখ্যালঘু-হিন্দুরাও ছিলেন পুজা-অর্চনায় ব্যস্ত। হঠাৎই রাত্রির নিস্তব্ধতা খান-খান করে ধেয়ে এল, কাশেমের ফৌজ। মুসলিম লীগের নোয়াখালী অঞ্চলের নেতা, কাশেম আলীর আদেশে শুরু হল হিন্দু-সং’হার। সঙ্গে ছিল গোলাম সারওয়ারর নিজস্ব-বাহিনী। উদ্দেশ্য একটাই, সমূলে হিন্দু-না’শ।

তার দুমাস আগেই কলকাতায় যে হ’ত্যা-যজ্ঞ অনুষ্ঠিত হয়েছিল, ১৬ই আগস্ট ১৯৪৬, যা শুরু হয়েছিল মুসলমান-দের নৃশং’সতম আক্র’মণে, কিন্তু শেষ হয়েছিল হিন্দুদের ভয়’ঙ্কর-প্রত্যুত্তরে। তার প্রতিশোধ নিতে, বন্য-আনন্দে হিন্দু-দের উপর ঝাঁ’পিয়ে পড়েছিল ইস’লামিক-নেতৃত্ব। মুহূর্তের মধ্যে নোয়াখালী জেলার রামগঞ্জ, বেগমগঞ্জ, রায়পুর, লক্ষীপুর, ছাগলনাইয়া, স্বন্দীপ এলাকা হল হিন্দুদের র’ক্তে-র’ক্তাক্ত। পাশের টিপেরা জেলার হাজীগঞ্জ, ফরিদগঞ্জ, চাঁদপুর, লক্ষম-চৌদ্দগ্রাম অঞ্চলগুলো হল, হিন্দুদের ‘যমলোক’। আটঘাট বেঁধে, পরিকল্পনা করে মা’রা হয়, হাজার-হাজার হিন্দুকে।

সার্বিক হিন্দু-গ’ণহ’ত্যায় কতজন যে প্রাণ হা’রালেন, কত হিন্দু-নারী হলেন ধ’র্ষি’তা, কতজনকে জোর করে গ’রুর মাংস খাওয়ানো হল, কতজন পুরুষকে জোর করে সু’ন্নত করে মা’রা হল, কতজন হিন্দু নারীকে গ’ণ-ধ’র্ষণ করে মাথার সিঁদুর মুছিয়ে দেওয়া হল, কতজন হিন্দু-নারী এক লহমায় গৃহবধূ থেকে বে’শ্যায় রূপান্তরিত হলেন, তার হিসেবে গত ৭৫ বছরেও পাওয়া যায়নি।

আনুমানিক ৫০০০ হিন্দু খু’ন হন নোয়াখালি গ’ণ-হ’ত্যায়। লাখখানেক হিন্দু ঘর ছেড়ে, আশ্রয় নেন পার্শ্ববর্তী কুমিল্লা, চাঁদপুর, আগরতলার রিলিফ-ক্যাম্পে। অক্টোবর ১১, গোলাম সারওয়ারের ফৌজ আক্র’মণ করে, নোয়াখালী বার-এসোসিয়েশন সভাপতি ও হিন্দু-মহাসভার জেলা সভাপতি রাজেন্দ্রলাল রায়চৌধুরীর বাড়ি। সারাদিন রাজেনবাবু রাইফেলের সাহায্যে, আ’গ্রাসী-বাহিনীর মোকাবিলা করেন।

পরেরদিন, ১২ই অক্টোবর, আরও বিশাল-বাহিনী, রায়চৌধুরী বাড়ি আক্রমণ করে পরিবারের ২২জন সদস্যকে হ’ত্যা করে। তাঁদের মধ্যে ছিলেন রাজেন্দ্রলাল রায়চৌধুরী, চিন্তাচরণ রায়চৌধুরী ও সতীশচন্দ্র রায়চৌধুরী। রাজেনবাবুর মাথা কে’টে একটি থালায় করে, গোলাম সারওয়ার-কে উপহার দেওয়া হয়। রায়চৌধুরী পরিবারের নারী’দের, ভাগ-বাঁটোয়ারা করে নেয় ইস’লামিক-বাহিনী। এইরকম ঘটনা ঘটে, হাজার-হাজার।

এটাই ছিল বর্তমান বাংলাদেশে, বাঙালি হিন্দুর শে’ষ যাত্রার শুরু। পরবর্তীকালে বরিশাল গ’ণ-হ’ত্যা, ভৈরব ব্রীজ গ’ণ-হ’ত্যা, ১৯৬৪র গ’ণ-হ’ত্যা, গোলাঘাট, নাড়িয়া, শাঁখারিকাঠি, ঈশানগোপালপুর, ডাকরা, জাটিভাঙা, মাকালকান্দি, শতনিখিল, গালিমপুর, আদিত্যপুর, সুত্রপুর, সেন্ডিয়া, কালীগঞ্জ, কড়াই কাদিপুর গ’ণ-হ’ত্যা, চুকনগর গ’ণ-হ’ত্যা। যা এখনও চলছে বাংলাদেশে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন