উত্তরপ্রদেশে যোগীকে জেতানোর কারিগর, এবার বাংলা বিজেপির দায়িত্বে

45
উত্তরপ্রদেশে যোগীকে জেতানোর কারিগর, এবার বাংলা বিজেপির দায়িত্বে
উত্তরপ্রদেশে যোগীকে জেতানোর কারিগর, এবার বাংলা বিজেপির দায়িত্বে

উত্তরপ্রদেশে যোগীকে জেতানোর কারিগর, এবার বাংলা বিজেপির দায়িত্বে। সরানো হল, বহুদিন বাংলার দায়িত্বে থাকা কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে। উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথকে ভোটে জেতানোর পিছনে বড় ভূমিকা ছিল তাঁর, সেই বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতা সুনীল বনশল এবার হলেন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। তাঁকে এই পদে নিযুক্ত করলেন, বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। একই সঙ্গে তাঁকে বাংলার পর্যবেক্ষক নিয়োগ করা হল, দেওয়া হল ওড়িশা এবং তেলঙ্গানার দায়িত্বও। বুধবার সুনীলের নিযুক্তির ঘোষণা করে বিজেপি।

অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ থেকে, বিজেপি-তে উত্থান ঘটে সুনীলের। ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হবার পরেই, অমিত শাহের নেকনজরে পড়েন সুনীল বনশল। উত্তরপ্রদেশে ‘আপনা দলের’ মতো আঞ্চলিক দলগুলিকে, একজোট করে বিজেপি-র ভিত মজবুত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল সুনীলের। কৈলাস বিজয়বর্গীয়র পরিবর্তে, গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে জর্জরিত বাংলা বিজেপির ভার এবার দেওয়া হল সুনীলের বুদ্ধিমান হাতে।

আরও পড়ুনঃ “পার্থ চোর হলেও, তৃণমূল কিন্তু চোর নয়”, জানিয়ে দিলেন ফিরহাদ

বাংলায় বিজেপির বৈতরণী পার করতে কৈলাস শুধু ব্যর্থই হননি, তাঁর আমলে বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব আরও বেড়েছে। মুকুল রায়-সহ তৃণমূল থেকে দলে-দলে লোকজনকে বিজেপি-তে এনে, পুরনো সৈনিকদের বিরাগভাজন হয়েছিলেন কৈলাস। বাংলায় তাঁর কর্মকাণ্ড নিয়েও, প্রশ্ন তোলেন অনেকে। এবার তাই বেছে বেছে তাঁর জায়গায় সুনীলকে তুলে আনায়, কৈলাসের রাজনৈতিক ভবিষ্যতের উপরও নেতিবাচক প্রভাব পড়ল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। সুনীল বনশলের হাত ধরে, বঙ্গ বিজেপি কি করে, সেটাই এখন দেখার।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন