মা’ওবা’দীদের নামে হু’মকি চিঠি দিয়ে, টাকা আদায় ‘খোদ’ রাজ্য পুলিশের

54
মা'ওবা'দীদের নামে হু'মকি চিঠি দিয়ে, টাকা আদায় 'খোদ' রাজ্য পুলিশের
মা'ওবা'দীদের নামে হু'মকি চিঠি দিয়ে, টাকা আদায় 'খোদ' রাজ্য পুলিশের

মা’ওবা’দীদের নামে হু’মকি চিঠি; টাকা আদায় খোদ রাজ্য পুলিশের! ঝাড়গ্রামে গ্রেফতার, পুলিশের হোমগার্ড-সহ ৬ জন। ইদানিং জঙ্গলমহলের বিভিন্ন জায়গায় মা’ওবা’দীদের নামে; একাধিক জায়গায় পোস্টার পড়ছিল। তাতে সন্দেহ তৈরি হচ্ছিল; পুলিশের মধ্যেই। এবার ঝাড়গ্রামে মা’ওবা’দী কার্যকলাপের অভিযোগে; গ্রেফতার হল এক পুলিশকর্মী। এই পুলিশকর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ, মা’ওবা’দীদের নাম করে সে টাকা তুলেছে; আর তার জন্যই পোস্টারিং করেছিল। এই ঘটনায় জোর আলোড়ন পড়েছে; ঝাড়গ্রাম সহ গোটা রাজ্যের পুলিশ মহলে।

ঝাড়গ্রামের একদা মা’ওবা’দী অধ্যু’ষিত অঞ্চলগুলিতে; সম্প্রতি ফের মা’ও আত’ঙ্ক ছড়িয়েছে। মা’ওবা’দীদের নামে ফোন করে হু’মকি; চিঠি পাঠানো, টাকা আ’দায়ের জন্য চা’প দেওয়া; এমন বেশ কিছু কার্যকলাপ ফের দেখা যাচ্ছিল। পুলিশের কাছে একাধিক অভিযোগ জমা পড়ে। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে; জামবনি থানার হোমগার্ড বাহাদুর মান্ডিই এসব কাজের মূল চ’ক্রী।

আরও পড়ুনঃ “মুকুল রায় হাল ছাড়লেও, পিএসি চেয়ারম্যান পদ নিয়ে তৃণমূলের ‘বদমায়েশি’ থামছে না”

শনিবার সকালে মা’ওবা’দীদের নামে পোস্টার লাগাতে গিয়ে; একেবারে হাতেনাতে ধরা পড়ে বাহাদুর। পাশাপাশি গ্রেফতার করা হয়েছে আরও ৫ জনকে। তাদের নাম শংকর মণ্ডল, মলয় কর্মকার, মহেন্দ্র হাঁসদা, বাবলু দলই, ও বাবুলাল সরেন। ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে টাকা; আ’গ্নেয়া’স্ত্র, মোবাইল ফোন। ঝাড়গ্রাম পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃতদের মধ্যে অন্যতম; জামবনি থানার হোমগার্ড বাহাদুর মান্ডি। শনিবার সকালে মা’ওবা’দীদের নাম পোস্টার লাগানো হচ্ছিল এলাকায়; তাতেই হাতেনাতে ধরা পড়ে বাহাদুর ও তার সঙ্গীসাথীরা। ধৃতদের আদালতে পেশ করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ কলেজে অনলাইনে ভর্তি নয়, জানালেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য, ফের দুর্নীতির আশঙ্কায় শিক্ষাবিদরা

ঠিক কী অভিযোগ উঠেছে?‌ ঝাড়গ্রাম পুলিশ সূত্রে খবর, মা’ওবা’দীদের নামে টাকা তোলার অভিযোগে; এক হোমগার্ড সহ মোট ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঝাড়গ্রাম পুলিশ সুপার অরিজিৎ সিনহা বলেন, “ধৃতদের কাছ থেকে একটি পি’স্তল এবং ৩৫ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে; উদ্ধার হয়েছে একটি মোবাইল ফোন। সেই ফোন দিয়ে বারবার সিমকার্ড বদলে কাজ করা হতো”।

সম্প্রতি ঝাড়গ্রামে এসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে তিনি দাবি করেছিলেন; জঙ্গলমহলে মা’ওবা’দী সমস্যা নেই। এটা কেউ বা কারা তৈরি করছে। পুলিশকে খোঁজ নিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন; তাঁর দাবিতেই সিলমোহর দিল পুলিশ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন