বাংলার ‘যমালয়ে জীবন্ত মানুষ’, পুজো কার্নিভালে গরুর গুঁতোয় মৃত এক আহত অনেক

81
বাংলায় 'যমালয়ে জীবন্ত মানুষ', পুজো কার্নিভালে গরুর গুঁতোয় মৃত এক আহত অনেক
বাংলায় 'যমালয়ে জীবন্ত মানুষ', পুজো কার্নিভালে গরুর গুঁতোয় মৃত এক আহত অনেক

বাংলার ‘যমালয়ে জীবন্ত মানুষ’, পুজো কার্নিভালে গরুর গুঁতোয় মৃত এক আহত অনেক। ঠিক যেন ‘যমালয়ে জীবন্ত মানুষ’। ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের গরু ভোলা, গুঁতিয়ে যমালয় ছাড়া করেছিল যমরাজ ও চিত্রগুপ্তকে। সেই একই ঘটনা ঘটল, আমাদের এই বাংলায়। উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে দুর্গা পুজো কার্নিভালে, গরুর গাড়ি থেকে প্রতিমা ফেলে ছুটল গরু, গরুর গুঁতোয় মৃত ১, আহত অনেকে।

রাজ্যের অন্যান্য জেলাগুলির মতো উত্তর দিনাজপুর জেলাতেও, শুক্রবার দুর্গাপূজা কার্নিভাল হচ্ছিল। ওই কার্নিভালে রায়গঞ্জের অনুশীলনী নামের একটি ক্লাব তাদের প্রতিমাগুলিকে ৩ টি গরুর গাড়িতে করে নিয়ে যাচ্ছিল। আর সেই রায়গঞ্জ কার্নিভালেই ঘটল, ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনা।

আরও পড়ুন; ঠিক যেন শোলের জয় আর বীরু, ৪০ জনকে বাঁচিয়ে হিরো রাম ও বিনু

মাইকের আওয়াজে, হাজার হাজার মানুষের চিৎকারে খেপে যায় গরুরা। একটি গরুর গাড়ি থেকে গাড়ি ফেলে, মা দুর্গাকে ফেলে ছিটকে পালায় দু’টি গরু। সেই গরুদের ধাক্কা ও হুড়োহুড়িতে আহত হলেন অন্তত ৩০ জন। আহতদের বেশিরভাগকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হলেও তিনজন এখনও রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

তাঁদের মধ্যে ভারত সেবক সমাজ ক্লাবের সভাপতি, ষাট-বছর বয়সি সাধন কর্মকারের অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। গভীর রাতে হাসপাতালে, তাঁর মৃত্যু হয়। যদিও উত্তর দিনাজপুরের জেলাশাসকের দাবি আহতের সংখ্যা মাত্র ৮ জন। কার্নিভালে ভিড়ে আর আওয়াজের মধ্যে, পশুদের নিয়ে আসার বুদ্ধি কার ছিল, সেটাই প্রশ্ন। এই মৃত্যুর দায় কার?

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন