বিধায়কের গাড়িতে দুষ্কৃতীদের বোমা গুলির হামলায় মৃত তিন

321
বিধায়কের গাড়িতে বোমা গুলির 'শুট আউট' এর তদন্তে সিআইডি/The News বাংলা
বিধায়কের গাড়িতে বোমা গুলির 'শুট আউট' এর তদন্তে সিআইডি/The News বাংলা

The News বাংলা, জয়নগরঃ ভয়াবহ হামলা বাংলায়। রাজ্যের বিধায়কের গাড়িতে বোমা গুলি নিয়ে হামলা চালাল দুষ্কৃতীরা। গাড়ির চালক সহ তিনজন ঘটনাস্থলেই মারা যায়। নিহতের নাম সইফুদ্দিন খান ও সেলিম খান ওরফে বাবু। একজনের নাম এখনও পর্যন্ত জানা যায়নি। ঘটনাটি ঘটেছে জয়নগর থানার দুর্গাপুরে একটি পেট্রোল পাম্পের কাছে। আগেই গাড়ি থেকে নেমে যাওয়ায় বরাতজোরে প্রাণে বাঁচেন তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস।

আরও পড়ুনঃ ‘ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র ঘোষণা করুক মোদী ও মমতা’ ঘোষণা বিচারপতির

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত ৮ টা নাগাদ তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস গাড়ি নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন একটি সভা করার জন্য। গাড়িতে বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস ছাড়াও ছিলেন গাড়িচালক সেলিম খান ও সইফুদ্দিন খান সহ আরও একজন। গাড়িতে আসার পথে জয়নগরের বহরুতে তৃণমূল কংগ্রেসের একটি সভা থাকায় বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস গাড়ি থেকে নেমে যান সভায় যাওয়ার জন্য। তারপর বিধায়কের গাড়িতে তেল পুড়তে জয়নগর এলাকার দিকে আসছিল চালক সহ তিনজন। জয়নগরের দুর্গাপুরে একটি পেট্রোল পাম্পে তেল পুড়ে বিধায়কের গাড়ি বাইরে আসতেই গাড়ির উপর হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। বোমা ও গুলির আঘাতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় তিনজন।

বিধায়কের গাড়িতে দুষ্কৃতীদের বোমা গুলির হামলায় মৃত তিন/The News বাংলা
বিধায়কের গাড়িতে দুষ্কৃতীদের বোমা গুলির হামলায় মৃত তিন/The News বাংলা

আরও পড়ুনঃ তৃণমূল সরকার ঠিক করবে বিজেপি রথ যাত্রার দিন

জানা গেছে, দুষ্কৃতীদের ছোড়া বোমা ও গুলিতে মৃত্যু হয়েছে এক তৃণমূল নেতা-সহ মোট তিন জনের। গাড়ির ভিতরে বসে থাকা তিন যাত্রীর উপরই গুলি চালানো হয় বলে অভিযোগ। গুলির পাশাপাশি গাড়ি লক্ষ্য করে বোমাবাজিও করা হয়। গাড়ির চালক সেলিম খান, সইফুদ্দিন খান ও আরও এক ব্যক্তির মৃত্যু হয় এই ঘটনায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার রাতে ব্যপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে জয়নগর থানা এলাকার দুর্গাপুরে। জয়নগরের তৃণমূল বিধায়ক বিশ্বনাথ দাসের দাবি, তাকে খুনের জন্যই দুষ্কৃতীরা হামলা চালিয়েছিল। ঘটনার তদন্তে নেমেছে জয়নগর থানার পুলিশ।

আরও পড়ুনঃ EXCLUSIVE: দিল্লীর নির্ভয়া ধর্ষণ কাণ্ডের পরেও নিরাপত্তাহীন কলকাতার বাস

জানা গেছে, ওই গাড়িতে জয়নগর টাউন তৃণমূল কংগ্রেসের জয়হিন্দ বাহিনীর সভাপতি সইফুদ্দিন খান-সহ মোট তিনজন ছিলেন। বিধায়ককে নামিয়ে গাড়িটি জয়নগরের দুর্গাপুর পেট্রল পাম্পে যায় জ্বালানি ভরতে। পেট্রলপাম্প থেকে জ্বালানি ভরে বেরোনোর সময়ই আচমকা গাড়িটি ঘিরে ধরে একদল দুষ্কৃতী। তারা গাড়ি লক্ষ্য করে মুহুর্মুহু গুলি ও বোমা ছুঁড়তে থাকে।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় ২৫ টাকা কেজি পেঁয়াজ, নাসিকে দাম না পেয়ে আত্মহত্যা

ঘটনায় গাড়ির ভেতরে থাকা তিনজন গুরুতর জখম হন। গুলি বোমা ছুড়ে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। স্থানীয়রাই গুরুতর জখম অবস্থায় তিনজনকে উদ্ধার করে জয়নগরের পদ্মেরহাট গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যান চিকিৎসার জন্য। সেখানেই তিনজনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। ঘটনার খবর পেয়ে বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস এবং বারুইপুর পুলিশ জেলার একাধিক পুলিশ আধিকারিকরা চলে আসেন ঘটনাস্থলে।

আরও পড়ুনঃ জনগণকে ‘গাধা’ বানিয়ে ‘শিক্ষাগুরু নেহেরু’র যোগ্য ছাত্র সব রাজনীতিবিদ

পুলিশের কাছে বিশ্বনাথ দাস দাবি করেন, তাঁকে খুনের উদ্দেশ্যেই দুষ্কৃতীরা এই হামলা চালিয়েছে। তবে কি কারণে এই হামলা সেটি এখনও পরিষ্কার নয়। এর পেছনে রাজনৈতিক কোনো কারণ রয়েছে, নাকি অন্য কোনও কারণ সে বিষয়ে তদন্ত করে দেখছে জয়নগর থানার পুলিশ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন