বাংলায় উদ্বাস্তুদের নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করল বামফ্রন্ট

534
বাংলায় উদ্বাস্তুদের নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করল বামফ্রন্ট/The News বাংলা
বাংলায় উদ্বাস্তুদের নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করল বামফ্রন্ট/The News বাংলা

The News বাংলা, শিলিগুড়িঃ এবার বাংলাদেশ থেকে আসা উদ্বাস্তুদের নিয়ে আন্দোলন শুরু করল বামফ্রন্ট। রাজ্যে এনআরসি-র প্রশ্নে বাস্তুহারা পরিষদের মিছিলে বিজেপি-র বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করলেন সিপিএম নেতারা।

একটা সময় কংগ্রেসের বিরুদ্ধে ওঠা বামেদের প্রিয় স্লোগান ছিল, ‘কংগ্রেসের কালো হাত ভেঙে দাও, গুড়িয়ে দাও’। এবার বিজেপির বিরুদ্ধে সেই স্লোগান শোনা গেল শিলিগুড়ির বিধায়ক তথা মেয়র অশোক ভট্টাচার্যের কন্ঠে। অসমের এনআরসির ছায়া যাতে পশ্চিমবঙ্গে না পড়ে সে কারনে সম্মিলিত কেন্দ্রীয় বাস্তুহারা পরিষদকে পুনরায় জাগিয়ে শুক্রবার এক মিছিলের ডাক দেওয়া হয়।

আরও পড়ুনঃ রাহুলের হার রাফায়েলে সুপ্রিম কোর্টে জয় নরেন্দ্র মোদীর

মিছিলে বাগডোগড়া, নক্সালবাড়ি, ফাঁসিদেওয়া ও শিলিগুড়ির প্রচুর ইউসিআরসি কর্মীরা সমবেত হয়। সেখানে একটি সভা করা হয়। সেই সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে অশোক ভট্টাচার্য বিজেপি-কে উদ্দেশ্য করে এই স্লোগান দেন।

তার আরও বক্তব্য, দেশ স্বাধীন হবার পর প্রচুর মানুষ ওপার বাংলা থেকে ও পাকিস্তান থেকে এ দেশে এসেছে। তাদের বাসস্থান ও নাগরিকত্ব দেওয়ার দায়িত্ব ছিল তৎকালিন কেন্দ্র ও রাজ্যের ক্ষমতাসীন কংগ্রেস সরকারের। কিন্তু তারা তাদের দায়িত্ব পালন করে নি বলে মেয়র অভিযোগ করেন।

আরও পড়ুনঃ ‘ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র ঘোষণা করুক মোদী ও মমতা’ ঘোষণা বিচারপতির

পাশাপাশি তিনি কেন্দ্র ও রাজ্যের কাছে প্রশ্ন তোলেন, যদি পাকিস্তান থেকে আগত উদ্বাস্তুদের পঞ্জাব সরকার ও কেন্দ্র সরকার নাগরিকত্ব দিয়ে থাকে তাহলে পশ্চিমবঙ্গে দেওয়া হল না কেন? তিনি সম্প্রতি অসমে এনআরসি চালু হওয়ার তীব্র প্রতিবাদ করে বলেন, বিজেপি হুমকি দিচ্ছে এ রাজ্যেও তারা ক্ষমতায় এলে এখানেও এনআরসি চালু করবে।

আরও পড়ুনঃ তৃণমূল সরকার ঠিক করবে বিজেপি রথ যাত্রার দিন

তিনি বিজেপি-কে পাল্টা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, বিজেপি যদি এ রাজ্যে এনআরসি চালু করার চেষ্টা করে তাহলে ওদের হাত গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে। তিনি বলেন, ‘আমরা কোনোমতেই এ ধরনের আইন মানব না। বাংলায় এনআরসি চালু করতে এলে ওদের হাত গুড়িয়ে দেব’। তিনি দাবি করেন, প্রতিটি উদ্বাস্তুদের পুনর্বাসন ও নাগরিকত্বের অধিকার দিতে হবে। কোনোমতেই উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়া যাবে না।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় এনআরসি চালু হলে রাজ্য ছাড়ার আশঙ্কায় আন্দোলন

দার্জিলিং জেলা বাম আহ্বায়ক জীবেশ সরকার বলেন, ‘এখন পুর্ব বাংলার মানুষ শুধু উদ্বাস্তু নয়। প্রতিদিন গরীব মানুষরা উদ্বাস্তু হচ্ছে। তিনি এশিয়ান হাইওয়ের উদাহরন দিয়ে বলেন, এশিয়ান হাইওয়ে হওয়ার সময় রাস্তার দুধারে বসবাসকারী মানুষদের উচ্ছেদ করা হচ্ছে। এরাও এখন উদ্বাস্তু।

আরও পড়ুন: বিধায়কের গাড়িতে বোমা গুলির ‘শুট আউট’ এর তদন্তে সিআইডি

প্রতিটি কলোনীতে বসবাসকারীদের নিঃশর্ত জমির দলিল প্রদান সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের মুল্য বৃদ্ধি রোধ করা ও অসমের উদ্বাস্তুদের ওপর নাগরিক পঞ্জিকরনের নামে তান্ডব বন্ধ করার দাবী জানিয়ে সম্মিলিত কেন্দ্রীয় বাস্তুহারা পরিষদের ডাকে শুক্রবার এক মহা মিছিলের ডাক দেওয়া হয়।

এদিন কয়েক হাজার কলোনিবাসি এই মিছিলে সামিল হয়। মিছিলটি শিলিগুড়ির বাঘাযতীন পার্ক থেকে শুরু করে এয়ারভিউ মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। তবে বাংলার বাকি জনতা বাংলাদেশী উদ্বাস্তুদের নিয়ে সিপিএমের এই আন্দলনকে কতটা সমর্থন করবেন সেটাই দেখার।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন