ভারতের ভয়ে কাঁপছে পাকিস্তান, অভিনন্দনকে বিমানে আনার প্রস্তাব নাকচ

425
ভারতের ভয়ে কাঁপছে পাকিস্তান, অভিনন্দনকে বিমানে আনার প্রস্তাব নাকচ/The News বাংলা
ভারতের ভয়ে কাঁপছে পাকিস্তান, অভিনন্দনকে বিমানে আনার প্রস্তাব নাকচ/The News বাংলা

দেশে ফিরলেন অভিনন্দন বর্তমান, কিন্তু ওয়াঘা-আটারি সীমান্ত দিয়ে। পাকিস্তানে আটক থাকা ভারতের যুদ্ধবিমানের পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ফেরত আনতে ভারত বিশেষ বিমান পাঠাতে চেয়েছিল। কিন্তু ভারতের এই প্রস্তাবে রাজি না হয়ে ওয়াঘা-আটারি সীমান্ত দিয়ে শুক্রবার তাকে ফেরত পাঠানোর কথা জানিয়ে দেয় পাকিস্তান। ভারতীয় বিমানের কথা শুনেই ভয় পেয়ে ভারতের প্রস্তাব না করে দিয়েছে, বলছে আন্তর্জাতিক মহল। শেষ পর্যন্ত রাত সাড়ে ৯ টায় ওয়াঘা-আটারি সীমান্ত দিয়ে ফেরেন তিনি।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানে ভারতীয় সেনার সাহস ও বীরত্ব দেখিয়ে দেশে ফিরলেন অভিনন্দন

পাকিস্তান থেকে ভারতে ফিরতে দুটি পথ ব্যবহারের সুযোগ আছে। একটি হলো আকাশ পথ, অন্যটি ওয়াঘা-আটারি সীমান্ত। ভারত চেয়েছিল ওয়াঘা-আটারি সীমান্তের গণমাধ্যম আর ভীড়ের মধ্যে দিয়ে না এনে তাকে সরাসরি বিমানযোগে দ্রুত দেশে এনে চিকিৎসা করাতে। কিন্তু পাকিস্তান ভারতের সেই প্রস্তাবে রাজি না হয়ে শুক্রবার বিকালের যেকোন সময়ে সীমান্ত দিয়ে অভিনন্দনকে ভারতে ফেরতে পাঠানোর কথা বলে দেয়। রাত সাড়ে ৯ টায় ওয়াঘা-আটারি সীমান্ত দিয়ে দেশে ফেরেন তিনি।

আরও পড়ুনঃ বন্দি হয়েও ভারতীয় বায়ুসেনা অভিনন্দন এর সাহস দেখে কেঁপে গেল পাকিস্তান

ভারতীয় বিমান বাহিনীর একটি দল অভিনন্দনকে সীমান্তে গ্রহণ করেন। তবে অভিনন্দনকে ইন্টারন্যাশনাল রেডক্রসের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি বলেই জানা গেছে। তাঁকে সরাসরি ভারতীয় কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেই জানা গেছে। তবে এই বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এদিকে অভিনন্দনকে প্রত্যাবর্তনের এই দৃশ্য দেখতে ভারত-পাকিস্তানের ওয়াঘা-আটারি সীমান্তে ভারতের হাজার হাজার লোক জড় হন। পাইলটকে ফেরত পাঠানোর জন্য দুই দেশের সেনারাই সীমানায় নিরাপত্তা বাড়িয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানের হাতে যুদ্ধবন্দি ভারতের যুদ্ধবিমান পাইলট উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভারতের নিরাপত্তা বাহিনী সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) গাড়ির কনভয়ে হামলা চালানো হয়। এর প্রতিশোধ নিতেই গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোরে পাকিস্তানের বালাকোট শহরে জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে হামলা চালায় ভারতীয় বিমান বাহিনী।

আরও পড়ুনঃ যা হয়েছে তা ট্রেলার, আসল ফিল্ম এখনও বাকি বললেন নরেন্দ্র মোদী

হামলায় প্রায় ৩০০ জঙ্গি নিহত হয় বলে দাবি করে ভারত। এর একদিন পরই গেল বুধবার ভারতের দুটি যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত ও বায়ুসেনা পাইলট উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে আটক করার দাবি করে পাকিস্তান। কিন্তু শুরুতে পাকিস্তানের এই দাবি প্রত্যাখান করলেও পরে ভারত আটকে পড়া একজন পাইলটের কথা স্বীকার করে তাকে দেশে ফেরত চেয়ে দিল্লিতে নিযুক্ত পাক হাইকমিশনারকে ডেকে পাঠায়।

আরও পড়ুনঃ যুদ্ধের উত্তেজনা ভারত পাক সীমান্তে নামল ট্যাঙ্ক, সমুদ্রে প্রস্তুত যুদ্ধজাহাজ

বুধবারই ভারত অভিনন্দনকে দ্রুত এবং নিরাপদে দেশে ফেরত পাঠানোর দাবি জানায়। এর মাঝেই বৃহস্পতিবার পাক পার্লামেন্টে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ঘোষণা দেন, ‘শান্তির স্বার্থে’ শুক্রবার অভিনন্দনকে মুক্তি দেওয়া হবে। তবে আন্তর্জাতিক চাপে এবং জেনেভা কনভেনশনের কারণেই পাইলটকে মুক্তি দিতে বাধ্য হল পাকিস্তান, বলছে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞরা।

আরও পড়ুনঃ ভারতের কূটনৈতিক চাপে পাকিস্তান ফেরাচ্ছে পাইলট অভিনন্দনকে

এরপরেই পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ফেরত আনতে ভারত বিশেষ বিমান পাঠাতে চেয়েছিল। কিন্তু তা খারিজ করে দেয় পাকিস্তান। ভারতের বিমানকে পাকিস্তানকে ঢুকতে দেওয়া হবে না বলেই ভয়ে ভারতকে না করে দিয়েছে পাকিস্তান বলছে আন্তর্জাতিক মহল। শেষ পর্যন্ত সীমান্ত পেরিয়ে পায়ে হেঁটেই ভারতে প্রবেশ করেন এই বীর সৈনিক।

আরও পড়ুনঃ বায়ুসেনার সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে মমতার সন্দেহকে হাতিয়ার পাক মিডিয়ার
আরও পড়ুনঃ যুদ্ধ লাগলে বাঁচতে সীমান্তে ১৪ হাজার বাঙ্কার নির্মাণ করছে ভারত
আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানে ভারতের বিমানহানার সময় জন্ম নবজাতকের নাম মিরাজ

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন