তৃণমূল নেতা-মন্ত্রীদের পর, সিবিআই ইডির নজরে বাংলার আইপিএস-আইএএস

75
তৃণমূল নেতা-মন্ত্রীদের পর, সিবিআই ইডির নজরে রাজ্যের আইপিএস-আইএএস
তৃণমূল নেতা-মন্ত্রীদের পর, সিবিআই ইডির নজরে রাজ্যের আইপিএস-আইএএস

তৃণমূল নেতা-মন্ত্রীদের পর এবার, সিবিআই-ইডির নজরে রাজ্যের বেশ কিছু আইপিএস-আইএএস অফিসার। নেতা-মন্ত্রীদের পর কয়লা-কেলেঙ্কারি মামলায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নজরে, রাজ্যের ১৭জন আইপিএস-আইএএস অফিসার। এদের মধ্যে ১২জন আইপিএস ও ৫জন আইএএস অফিসার। এরা প্রত্যেকেই কয়লা-বেল্টের জেলাগুলিতে, কোন না কোন সময়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন। প্রাথমিক-ভাবে ৭জন আইপিএস-কে চলতি মাসেই তলব করা হয়েছে, তাঁদের দিল্লি গিয়ে ইডি সদর দফতরে হাজিরা দিতে হবে।

আইপিএসদের তলব তালিকায় রয়েছেন, রাজ্য পুলিশের ডিজি জ্ঞানবন্ত সিং। তাঁকে ডাকা হয়েছে, আগামী ২২শে আগস্ট। আইপিএস কোটেশ্বর রাওকে ডাকা হয়েছে ২৩শে আগস্ট। শ্যাম সিংকে ২৪শে আগস্ট। এলএম মিনাকে ২৫শে আগস্ট। সেলভা মুরুগনকে ২৬শে আগস্ট। সুকেশ জৈনকে ২৯শে আগস্ট। ভাস্কর মুখোপাধ্যায়-কে ডাকা হয়েছে ৩১শে আগস্ট। তাঁদের কাছে পৌঁছে গেছে নোটিস।

আরও পড়ুনঃ “তৃণমূল কোনওরকম দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেয় না, অনুব্রত নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে দল”

কয়লা পাচার-কাণ্ডে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করল ইডি। যে সময় কয়লা-পাচারের ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছিল, সেই সময় এই পুলিশ আধিকারিকরা জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন। যে সাত পুলিশকর্তাকে কয়লা-পাচার মামলার তদন্তে দিল্লিতে তলব করেছে ইডি, তাঁরা সকলেই কোনও না কোনও সময়ে আসানসোল, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া জেলায় কর্মরত ছিলেন। বাংলার কয়লাপাচার মামলার, মূল জায়গা এই অঞ্চলগুলিই।

কয়লা পাচার কাণ্ডে ইতিমধ্যেই তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে, একাধিক-বার দিল্লি ও কলকাতায় তলব করেছে ইডি। এখন দেখার পুলিশ আধিকারিকদের পর, অভিষেক-কে আবার ডাক পাঠায় কিনা।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন