এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতার কাছে কাটমানি ফেরত চাইলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

2703
এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতার কাছে কাটমানি ফেরত চাইলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী/The News বাংলা
এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতার কাছে কাটমানি ফেরত চাইলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী/The News বাংলা

গল্প হলেও সত্যি। এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতার কাছে; কাটমানি ফেরত চাইলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। নিজের দলের নেতাদেরই দুর্নীতিবাজ বলেছেন; দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরকারি সম্পত্তি নিজের নামে করেছেন নেতারা; খেয়েছেন কাটমানি; দলের নেতাদের বিরুদ্ধেই বিস্ফোরক অভিযোগ করেন তৃণমূল নেত্রী। তারপর থেকেই শুরু হয়; নেতাদের কাটমানি বিপদ।

এবার সেই বিপদে পড়লেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই। ভোটে হারের কারণ খুঁজতে ও রাজ্য জুড়ে দলের নেতাদের সচেতন করতে; গত সোমবার নজরুল মঞ্চে সভা ডাকেন। সেখানে নিজের দলের নেতাদের দুর্নীতির বিরুদ্ধেই; মুখ খোলেন তৃণমূল নেত্রী। নেতাদের কাটমানি খাওয়ার জন্যই দল হেরেছে; পরিষ্কার জানিয়ে দেন মমতা।

মমতার এই ঘোষণার পরে; মঙ্গলবার থেকেই কাটমানি ফেরত নিতে; বিভিন্ন জেলায় তৃণমূল নেতার বাড়িতে হাজির সাধারণ মানুষ। এখানেই শেষ নয়; কাটমানি খাবার অভিযোগে পুলিশের হাতে গ্রেফতারও হয়েছেন; শাসক দলের তিন নেতা। এবার মমতার রাজ্য সরকারের কাছে কাটমানি খেয়ে দুর্নীতির জন্য; টাকা ফেরত চাইল কেন্দ্রীয় সরকার।

একশ দিনের কাজে কোটি কোটি টাকা নয়ছয়ের অভিযোগ; হুগলি জেলার বেশ কয়েকটি গ্রাম পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে। দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এবং টাকা ফেরত দিতে নির্দেশ জেলা প্রশাসনের। কেন্দ্রীয় গ্ৰামোন্নয়ন দপ্তর থেকে গত ২২-২৪শে জানুয়ারিতে; হুগলী জেলার কয়েকটি পঞ্চায়েতে ১০০ দিনের প্রকল্পের কাজের সমীক্ষা হয়।

চারটি গ্ৰাম পঞ্চায়েতে; কাজে বিপুল পরিমাণ আর্থিক অসঙ্গতি ধরা পড়ে। এরপরই রাজ্য পঞ্চায়েত দপ্তরের কাছে টাকা ফেরত চায়; কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রক। হুগলির পোলবা দাদপুর ব্লকের রাজহাট, সাটিথান, ধনিয়াখালীর বেলমুরি পঞ্চায়েত এবং বলাগড়ের সোমরা গ্রাম পঞ্চায়েতে; মোট তিন কোটি আট লক্ষ টাকার অসঙ্গতি ধরা পড়েছে।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট ব্লকের বিডিও ও প্রকল্প আধিকারিককে; টাকা ফেরত দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। দোষীদের চিহ্নিত করে; তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। পঞ্চায়েত স্তরে একশ দিনের কাজ নির্মাণ সহায়করা দেখাশোনা করেন। তাদের বিরুদ্ধেই অভিযোগের আঙুল উঠেছে।

এব্যপারে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন উত্তর পাওয়া না গেলেও; হুগলি জেলাপরিষদের সভাধিপতি মেহেবুব রহমান বলেন, “কেন্দ্রীয় সরকার উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে প্যাঁচে ফেলতে এই সমীক্ষা করেছে। টাকা সরাসরি ব্যাঙ্ক এ্যকাউন্টে ঢুকেছে। কোনও দুর্নীতি হয়নি”। তবে টাকা ফেরত পেতে অনড় কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রক।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন