ভারতীকে রাজ্যে ঢোকা থেকে আটকাতে সুপ্রিম কোর্টে মমতা

407
ভারতীকে রাজ্যে ঢোকা থেকে আটকাতে সুপ্রিম কোর্টে মমতা/The News বাংলা
ভারতীকে রাজ্যে ঢোকা থেকে আটকাতে সুপ্রিম কোর্টে মমতা/The News বাংলা

ভারতী ঘোষকে বাংলায় ঢোকা থেকে আটকাতে সুপ্রিম কোর্টে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার। প্রাক্তন আইপিএস অফিসার এবং ২০১৯ লোকসভা ভোটে ঘাটালের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ যেন পশ্চিমবঙ্গে ঢুকতে না পারেন তার জন্য বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানালো রাজ্য সরকার। আর এই নিয়েই ফের সরগরম বিজেপি বনাম তৃণমূল রাজ্য রাজনীতি।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় উন্নতিতে বাধা ‘স্পীডব্রেকার’ মমতা, কটাক্ষ মোদীর

বৃহস্পতিবার রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টে ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে চলা মামলার তদন্তের কথা উল্লেখ করে এই আবেদন করা হয়। ভোট প্রচারকে হাতিয়ার করে ভারতী ঘোষকে যেন এই রাজ্যে প্রবেশ করার অনুমতি না দেওয়া হয়। রাজ্য তথা পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় যেন ঢুকতে না পারেন বিজেপি নেত্রী, এমনটাই দাবি করা হয়েছে দেশের শীর্ষ আদালতে।

আরও পড়ুনঃ দুই বছর পর পাহাড়ে ফের প্রকাশ্যে বিমল গুরুং রোশন গিরি

এই আবেদনের মূল কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, ভারতী ঘোষ জেলায় ঢুকলে তদন্তকে প্রভাবিত করতে পারেন। জানা গিয়েছে, শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টে এই মামলার শুনানি আছে। ভারতী ঘোষ কি নিজের কেন্দ্রে প্রচার করতে পারবেন না? উঠে গেল প্রশ্ন।

আরও পড়ুনঃ চৌকিদারের ডান্ডা দেখে ভয় পেয়েছে কংগ্রেস, মন্তব্য বিবেকের

ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে মামলা করেন পশ্চিম মেদিনীপুরের স্বর্ণ ব্যবসায়ী চন্দন মাজি। চন্দন মাজি অভিযোগ করেন, ভারতী ঘোষ হুমকি দিয়ে চাঁদা আদায় করতেন। টাকা ও সোনা আদায় করা ছিল তাঁর লক্ষ্য। এই অভিযোগ নিয়ে শুরু হয় তদন্ত। শুরু হয় রাজ্য সরকারের মামলা।

আরও পড়ুনঃ দিল্লিতে গান্ধী ও বাংলায় বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারতন্ত্রকে ব্রিগেডে খোঁচা মোদীর

এই অভিযোগের পরেই, সিআইডি ভারতী ঘোষের অবৈধ সম্পত্তির খোঁজে তল্লাশি চালান কলকাতার আনন্দপুরে ভারতী ঘোষের তিনটি বাড়িতে। সিআইডি ৬ ফেব্রুয়ারি এই তল্লাশির পর দাবি করে, তাঁর আস্তানা থেকে উদ্ধার হয়েছে নগদ আড়াই কোটি টাকার নতুন নোট। এ ছাড়া অন্যান্য সামগ্রী।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্থানে বিমানবাহিনীর হামলা, বাংলায় কাঁদল দিদি

এরপর বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগে মামলা করে রাজ্য পুলিশ। সেই সব মামলার অভিযোগ তদন্ত করছে সিআইডি। মামলার তদন্তের স্বার্থে ভারতী ঘোষের স্বামীকেও জিজ্ঞাসাবাদ করে সিআইডি।

আরও পড়ুনঃ গাধা না ঘোড়া, দিনভর বিতর্কের পর জানা গেল খচ্চরের পিঠে ভোটপ্রার্থী

গত ডিসেম্বরে ভারতী ঘোষের অনেকটা পদাবনতি ঘটিয়ে পুলিশ সুপারের পদ থেকে সরিয়ে তাঁকে বদলি করা হয় উত্তর ২৪ পরগনা জেলার ব্যারাকপুরের পুলিশের তৃতীয় ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার পদে। এটা মেনে নিতে পারেননি ভারতী ঘোষ। তিনি নতুন পদে যোগ না দিয়ে চাকরি ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন। তাঁকে পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল সাংসদ দীপক অধিকারী(দেব) এর বিপক্ষে প্রার্থী করে বিজেপি নেতৃত্ব।

আরও পড়ুনঃ মমতার সঙ্গে পারবে না, রাজ্যস্তরের অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে মোদীকে লড়ার চ্যালেঞ্জ

লোকসভা ভোট ২০১৯ এ বিষ্ণুপুরের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁকেও বাঁকুড়া জেলায় প্রবেশের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে কলকাতা হাইকোর্ট। ভারতী ঘোষের ব্যাপারেও যদি কোর্ট নিষেধাজ্ঞা জারি করে তাহলে অনিবার্যভাবেই ভোট প্রচারে ভারতী ঘোষ পশ্চিম মেদিনীপুরে ঢুকতে পারবেন না।

আরও পড়ুনঃ মমতার দাবি না মেনে জঙ্গলমহল থেকে ৩০ কোম্পানি বাহিনী তুলছে নির্বাচন কমিশন

লোকসভা ভোটের আগে প্রার্থীরা প্রচারের জন্য যদি নিজেদের কেন্দ্রে উপস্থিত থাকতে না পারে তাহলে স্বাভাবিকভাবেই তা বিজেপির পক্ষে বড় ধাক্কা হবে। আর এই নিয়েই শুরু হয়েছে বিজেপি তৃণমূল জোর বিতর্ক। তৃণমূল ভয় পেয়েছে, তাই প্রার্থীদের আটকানোর চেষ্টা করছে দাবি বিজেপির। সবাই অপরাধী, তাই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে, দাবি তৃণমূলের। আর এই নিয়েই উত্তপ্ত রাজ্য রাজনীতি।

আরও পড়ুনঃ বিবেক দুবেকে তৃণমূলের এজেন্ট বলে কটাক্ষ মুকুল রায়ের

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন