‘অবরোধ উঠে গেছে’, ট্রাফিক পুলিশের পোস্টে ধুয়ে দিলেন সাধারণ মানুষ

108
'অবরোধ উঠে গেছে', ট্রাফিক পুলিশের পোস্টে ধুয়ে দিলেন সাধারণ মানুষ
'অবরোধ উঠে গেছে', ট্রাফিক পুলিশের পোস্টে ধুয়ে দিলেন সাধারণ মানুষ

‘অবরোধ উঠে গেছে’; কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের পোস্টে ধুয়ে দিলেন সাধারণ মানুষ। কেউ লিখেছেন; “লজ্জা করে না আপনাদের”। কেউ লিখেছেন; “রোদ্দুর রায়ের পিছনে পুলিশ না পাঠিয়ে ওখানে পাঠান, কাজে দেবে”। অনেকের মন্তব্য; “অসংখ্য ধন্যবাদ দুপুর ১টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এই কর্মকাণ্ড দেখে যাওয়ার জন্য”। কারো বক্তব্য; “কাল সকালে বাইক ধরবেন লাইন দিয়ে; কিছু তো একটা করতে হবে নাকি”। অনেকেই লিখেছেন; “আপনাদের ব্যর্থতাকে একজন ভারতীয় বাঙালি হিসাবে কুর্নিস জানাই; রাজ্যের প্রশাসন এবং প্রসাশক দুজনেই ব্যর্থ অবরোধ তুলতে”। “নির্লজ্জ্ব দালালির স্পষ্ট নিদর্শন। ছিঃ”; এমন মন্তব্যও দেখা গেল।

কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের পোস্টে গিয়ে; যাতা লিখে এলেন বাংলার মানুষ। সোজা কোথায় ট্রাফিক পুলিশকে তুলধোনা করে দিলেন; বাংলার আমজনতা। ঘটনাটা কি? বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে প্রায় রাত ৮টা পর্যন্ত; চলে জাতীয় সড়ক অবরোধ। ডোমজুড়-সহ বিভিন্ন জায়গায় অবরোধের জেরে; ১২ ঘণ্টা অবরুদ্ধ থাকে ৬ নম্বর জাতীয় সড়ক।

'অবরোধ উঠে গেছে', ট্রাফিক পুলিশের পোস্টে ধুয়ে দিলেন সাধারণ মানুষ
‘অবরোধ উঠে গেছে’, ট্রাফিক পুলিশের পোস্টে ধুয়ে দিলেন সাধারণ মানুষ

আরও পড়ুনঃ পিছু ছাড়ছে না কেকে-বিতর্ক, বাদ রূপঙ্কর এলেন অরিজিৎ সিং

প্রায় ১২ ঘণ্টার অবরোধে; চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় হাজার-হাজার সাধারণ মানুষকে। আটকে পরে অ্যাম্বুলেন্স, দমকলের গাড়ি; হাজার-হাজার বয়স্ক পুরুষ মহিলা, বাচ্চা। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে, রাস্তা অবরোধ করে; আন্দোলন একেবারেই নিষিদ্ধ। কিন্তু বৃহস্পতিবার এক স্বঘোষিত ইমামের ডাকা, জাতীয় সড়ক অবরোধ তুলতে; কিছুই করেনি রাজ্য পুলিশ প্রশাসন।

আরও পড়ুনঃ রাজ্য পুলিশের কনস্টেবল সায়গল হোসেন গ্রেফতার, অনুব্রতর রক্ষী হতেই অগাধ সম্পত্তি

রাত ১০টা নাগাদ; ট্রাফিক আপডেট দেয়; কলকাতা ট্রাফিক পুলিশ। সেখানে লেখা হয়; Traffic update: Road blockade withdrawn near from Nibra Crossing, traffic plying normally on 2nd Hooghly bridge towards Howrah।

এরপরেই ক্ষোভে ফুঁসে ওঠে আমজনতা। যে যেমন পারেন; লিখে আসেন কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের পেজে। প্রত্যেকেই ধুয়ে দেন; কলকাতা ট্রাফিক পুলিশকে। অনেকেই লিখেছেন, “লজ্জা লাগে না আপনাদের; চুপ করে বসে মজা দেখতে”? অনেকেই সরাসরি ‘ছিঃ’ লিখেছেন পুলিশের উদ্দ্যেশ্যে। এর দ্বারাই বোঝা যায়, জাতীয় সড়ক অবরোধ কাণ্ডে; কতটা ক্ষুব্ধ বাংলার সাধারণ মানুষ। তারা কলকাতা পুলিশের পেজে গিয়েও; কড়া সমালোচনা করতে ছাড়ছেন না।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন