আলোচনা প্রস্তাব দিয়ে চিঠি ইমরানের, কি সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত নরেন্দ্র মোদীর

375
আলোচনা প্রস্তাব দিয়ে চিঠি ইমরানের, কি সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত নরেন্দ্র মোদীর/The News বাংলা
আলোচনা প্রস্তাব দিয়ে চিঠি ইমরানের, কি সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত নরেন্দ্র মোদীর/The News বাংলা

আলোচনার প্রস্তাব দিয়ে; ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কি সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত নরেন্দ্র মোদীর? এই নিয়ে সরগরম রাজধানীর রাজনীতি। সন্ত্রাস না ছাড়লে আলোচনার প্রশ্নই নেই; প্রাথমিক সিদ্ধান্ত মোদীর ভারত সরকারের।

কাশ্মীরসহ অন্যান্য সমস্যাগুলির সমাধানে; ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে আলোচনা শুরু করার জন্য; ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। পুলওয়ামা হামলার পর; এই প্রথম মোদীকে আলোচনার জন্য; চিঠি দিলেন ইমরান।

দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার জন্য মোদীকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি লিখেছেন; দুদেশের মানুষের দারিদ্রের মোকাবিলা এবং উন্নয়নের স্বার্থে আলোচনায় বসাই একমাত্র রাস্তা। ইমরানের এই চিঠি নিয়ে; নয়াদিল্লির তরফে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া জানান হয়নি।

শুধু ইমরানই নয়, নতুন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্করকে চিঠি দিয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি। চিঠিতে কুরেশিও জানিয়েছে; দুই প্রতিবেশী দেশের খুব দ্রুত আলোচনার টেবিলে বসা প্রয়োজন।

আগামী ১৩-১৪ জুন কিরগিজস্তানের বিশকেক-এ এসসিও সম্মেলনে যোগ দিতে যাবেন ভারত এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু সেখানে মোদী ও ইমরানের মধ্যে বৈঠকের সম্ভাবনা নেই; বলেই স্পষ্ট করে দিয়েছে ভারত। তাই ভারত-পাক দ্বিপাক্ষিক আলোচনা এখনও অনেক দূরের ব্যপার।

নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ; পাকিস্তানের প্রতি নরম মনোভাব পোষণ করেন না। তাই শান্তি আলোচনা এখনও অনেক দূরে; বলেই মনে করছে কূটনৈতিক মহলও। তবে কূটনৈতিক সূত্রের মতে, আলোচনার টেবিলে না বসলেও দুই রাষ্ট্রনেতার একাধিকবার বিশকেক-এ দেখা হবে এবং সৌজন্য বিনিময়ও হবে।

ফলে এই সম্মেলনের কয়েকদিন আগে ইমরান ও কুরেশির চিঠি তাৎপর্যপূর্ণ। ভোটের প্রচারের সময় থেকেই ইমরান বার্তা দিয়েছিলেন; মোদী ভারতের ক্ষমতায় এলে সেটা পাকিস্তানের পক্ষেই সুবিধাজনক। ভোটের ফল ঘোষণার আগেই; মোদীকে আগ বাড়িয়ে অভিনন্দনও জানিয়েছিলেন তিনি।

সাউথ ব্লকের আধিকারিকেরাও স্বীকার করে নিচ্ছেন যে; পুলওয়ামায় হামলার পর থেকে যে আলোচনা বন্ধ ছিল; তা শুরু করা প্রয়োজন। ভোট শেষ, এ বার আন্তর্জাতিক মহলে বার্তা দিতে এবং দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তির বাতাবরণ তৈরি করতে; মোদী উদ্যোগী হবেন বলে মনে করছেন অনেকে।

তবে সাউথ ব্লকের একাংশ মনে করছেন; এখনই অহেতুক তাড়াহুড়ো করতে চাইবেন না মোদী। তাতে তার নিজের ঘরে ভুল বার্তা যেতে পারে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন