সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক প্রতারণা, তৃণমূল বিধায়কের আপ্ত সহায়ক গ্রেফতার

148
সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক প্রতারণা, তৃণমূল বিধায়কের আপ্ত সহায়ক গ্রেফতার
সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক প্রতারণা, তৃণমূল বিধায়কের আপ্ত সহায়ক গ্রেফতার

সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক প্রতারণা; তৃণমূল বিধায়কের আপ্ত সহায়ক-সহ গ্রেফতার ৩। চাকরি দেওয়ার নাম করে কোটি কোটি টাকা আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ; কয়েক বছর ধরেই রাজ্যে মাথাচাড়া দিয়ে দাঁড়িয়েছে। কখনও চাকরি প্রার্থীকে ভুয়ো চাকরির প্রতারণা পত্র ধরিয়ে দিয়ে; আবার কখনও লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে চাকরি না দেওয়া এসব হামেশাই শোনা যায়। এবার আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ উঠল; তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়কের বিরুদ্ধেই।

সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক প্রতারণা; রাজ্য পুলিশের দুর্নীতিদমন শাখার হাতে গ্রেফতার; নদিয়ার তেহট্টের তৃণমূল বিধায়কের আপ্ত সহায়ক প্রবীর কয়াল-সহ তিনজন। দক্ষিণ ২৪ পরগনার রায়দিঘির একটি হোটেল থেকে; গ্রেফতার করা হয় তাদের। ধৃতদের শনিবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হবে।

চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে, অনেকের কাছ থেকে; কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তথা নদিয়ার তেহট্টের বিধায়ক তাপস সাহার বিরুদ্ধে। তাঁর বিধানসভা এলাকার লোকেরাই; এই নিয়ে একটি চিঠি লিখেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর এরপরই এই মামলায় নদিয়া পুলিশ গ্রেফতার করল; বিধায়কের আপ্তসহায়ক প্রবীর কয়াল এবং তার দুই সঙ্গী শ্যামল কয়াল এবং সুনীল মণ্ডলকে।

অভিযোগ, ২০১৬ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত পলাশিপাড়ার বিধায়ক থাকাকালীন; তাপস সাহা কয়েক লক্ষ টাকা নিয়েছেন সাধারণ মানুষের থেকে। চাকরি পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে সেই টাকা নিলেও; বিধায়ক প্রতিশ্রুতি রাখেননি। এই আবহে যাঁরা টাকা দিয়েছেন; তাঁরা তাঁদের টাকা ফেরত চান বিধায়কের কাছ থেকে। তবে বিধায়ক টাকা ফেরত দিতে অস্বীকার করেন। অভিযোগ, তেহট্ট এবং করিমপুরেও; একই ধরনের ঘটনা ঘটান বিধায়ক। মোট তিন জায়গা থেকে সব মিলিয়ে তাপস সাহা ১৬ কোটি টাকা তোলেন; বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

যদিও তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ খারিজ করেছেন; বিধায়ক তাপস সাহা। এমনকি আপ্ত-সহায়কের সঙ্গে; তাঁর কোনও সম্পর্ক ছিল না বলে জানান তাপস সাহা। শুধু তাই নয়, তাঁর চ্যালেঞ্জ, অভিযোগ প্রমাণিত হলে; তিনি বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেবেন। এদিকে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ উঠতেই গা ঢাকা দিয়েছিল; প্রবীর, শ্যামল, সুনীলরা। এদিকে পুলিশ এদের খোঁজে; তল্লাশি চালিয়ে যাচ্ছিল। শুক্রবার রাতে রায়দিঘিতে তল্লাশি চালিয়ে; এই তিনজনকে গ্রেফতার করে দুর্নীতিদমন শাখা।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন