মমতার হুঁশিয়ারির উপেক্ষা করে ডাক্তারদের পাশে বাংলার বুদ্ধিজীবীরা

363
মমতার হুঁশিয়ারির উপেক্ষা করে ডাক্তারদের পাশে বাংলার বুদ্ধিজীবীরা//The News বাংলা
মমতার হুঁশিয়ারির উপেক্ষা করে ডাক্তারদের পাশে বাংলার বুদ্ধিজীবীরা//The News বাংলা

অবশেষে জুনিয়ার ডাক্তারদের পাশে এসে দাঁড়ালেন বাংলার বুদ্ধিজীবীরা। শুক্রবার অপর্ণা সেন, কৌশিক সেন, দেবজ্যতি মিশ্র সহ রাজ্যের বুদ্ধিজীবীরা; এন আর এস হাসপাতালে এসে জুনিয়ার ডাক্তারদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। জুনিয়ার ডাক্তারদের আন্দোলনকে সমর্থন করে; বিক্ষোভ মঞ্চ থেকে মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন তাঁরা।

প্রতিবাদ মঞ্চ থেকে অপর্ণা সেন মুখ্যমন্ত্রীকে বার্তা দেন; তিনি যেন একবার নিজে এসে জুনিয়ার ডাক্তারদের সাথে কথা বলেন। ডাক্তারদের সাথে যে ঘটনা ঘটেছে সেটা মোটেই কোন ছোট ঘটনা নয়; বলেও মন্তব্য করেন তিনি। আন্দোলনকারী ডাক্তারদের দাবি মেনে নেবার জন্য; মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেন অপর্ণা সেন।

আরও পড়ুন এন আর এস কাণ্ডের নিন্দায় শুক্রবার কর্মবিরতি দিল্লির এইমসের ডাক্তারদের

বুদ্ধিজীবীদের মতে মুখ্যমন্ত্রী এসে ডাক্তারদের পাশে দাঁড়ালেই; রাজ্য জুড়ে চিকিৎসা ব্যবস্থার এই অরাজক পরিস্থিতি সামলানো সম্ভব। আন্দোলনকারী জুনিয়ার ডাক্তারদের পাশে দাঁড়িয়ে; অপর্ণা সেন গতকালের মুখ্যমন্ত্রীর অবস্থানের কড়া নিন্দা করেন।

ডাক্তারদের হুঁশিয়ারির নিন্দা করে অপর্ণা সেন বলেন; “জুনিয়ার ডাক্তারদের অভিবাবক তো মুখ্যমন্ত্রী; তাহলে তিনি কেন এভাবে এসমা জারি করার হুমকি দিলেন। এটা চরম স্বৈরাচারীতার লক্ষন। মুখ্যমন্ত্রীর উচিত অবিলম্বে এই পরিস্থিতির সমাধান করা; ডাক্তারদের প্রয়োজনীয় সুরক্ষা দেওয়া”।

আরও পড়ুন মুখ পুড়ল বাংলার, হাসপাতাল কাণ্ডে নিন্দায় সরব দেশ ও বিশ্বের চিকিৎসক মহল

শুধু অপর্ণা সেনই নন, কৌশিক সেনও এসে দাঁড়িয়েছেন; এন আর এস এর জুনিয়ার ডাক্তারদের পাশে। ডাক্তারদের সুরক্ষার দাবিতে; এই আন্দলনকে সমর্থন জানিয়েছেন তিনিও। শুধু এনারাই নয়, সাংসদ দীপক অধিকারী (দেব) টুইট করেছেন; “যারা আমাদের প্রাণ বাঁচান; তাঁরা কেন বারবার মার খাবেন, তাদের সুরক্ষার দায় আমাদের”। তিনি ডাক্তারদের কাছেও অনুরোধ করেন রোগীদের পাশে যেন তাঁরা দাঁড়ান।

এদিকে শুক্রবার সকাল থেকেই ডাক্তারদের কর্মবিরতির পাশে শুরু হয়েছে সিনিয়ার ডাক্তারদের ইস্তফাপর্ব। রাজ্য জুড়ে আজও ডাক্তারদের গন ইস্তফা জমা পরছে। প্রায় ৮২ জন ডাক্তারের ইস্তফা জমা পরেছে শুক্রবার সকালে।

বৃহস্পতিবার, এসএসকেএম হাসপাতালে মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও; শুক্রবারও বন্ধ রাজ্যের সব হাসপাতালের আউটডোর। জুনিয়ার ডাক্তারদের পাশে দাঁড়িয়ে বাংলার বুদ্ধিজীবীরা বলেন; যতদিন না এই পরিস্থিতি মিটবে ততদিন তাঁরা কোন সরকারি অনুষ্ঠানে যোগদান দেবেন না বা কোন রকম সরকারি পুরস্কার গ্রহন করবেন না।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন