আজাদি শ্লোগানের জের, নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে তুমুল বিক্ষোভের মুখে কানহাইয়া

279
নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে তুমুল বিক্ষোভের মুখে কানহাইয়া/The News বাংলা
নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে তুমুল বিক্ষোভের মুখে কানহাইয়া/The News বাংলা

আজাদি শ্লোগানের জের, নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে তুমুল বিক্ষোভের মুখে কানহাইয়া কুমার। ভোট প্রচারের শুরু থেকেই তিনি মানুষের সাড়া পেয়েছেন। এই প্রথমবার তিনি তুমুল বিক্ষোভের মুখে পড়লেন বলেই জানা যাচ্ছে। আজাদি শ্লোগানের জেরেই এই বিক্ষোভ বলে জানা গেছে।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় দ্বিতীয় দফার ভোটেও সব বুথে থাকছে না কেন্দ্রীয় বাহিনী, ফের ঝামেলার আশঙ্কা

দিয়েছিলেন আজাদির শ্লোগান। আর সেই আজাদি শ্লোগানের জেরেই রাজনীতির মঞ্চে অন্যতম পরিচিত মুখ জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কানহাইয়া কুমার। লোকসভা নির্বাচনে সিপিআইয়ের হয়ে প্রার্থী মনোনীত হয়েছেন তিনি। প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বিহারের বেগুসরাই থেকে। ভোট প্রচারে সাড়াও ভালই পাচ্ছেন। ভোট খরচার টাকাও তুলেছেন মানুষের কাছে হাত পেতে। এবার কিন্তু মানুষের বিক্ষোভের মুখে পরে গেলেন।

আরও পড়ুনঃ বউকে সোনা পাচার করতে বিদেশে পাঠাই নি, অভিষেককে পাল্টা দিলেন সৌমিত্র

কানহাইয়ার দেওয়া আজাদি শ্লোগানের প্রসঙ্গ উঠে এল ভোটের বাজারে। নির্বাচনী প্রচার চলাকালীন নিজের নির্বাচনী কেন্দ্র বেগুসরাইয়ে জনসাধারণের প্রশ্নের সম্মুখীন হন তিনি। তাকে ঘিরে উত্তেজিত জনতা প্রশ্ন করেন, কিসের এবং কোন ধরনের আজাদি চাইছেন তিনি? কানাইহা কে কিছু বলতেই দেন নি আমজনতা।

নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে তুমুল বিক্ষোভের মুখে কানহাইয়া/The News বাংলা
নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে তুমুল বিক্ষোভের মুখে কানহাইয়া/The News বাংলা

শুধু আজাদির প্রশ্নই নয়, অন্যান্য বিভিন্ন ইস্যুতেই কানহাইয়াকে প্রশ্ন করতে শুরু করে বিক্ষুব্ধ জনতা। মোদী সরকারের আনা অর্থনৈতিক ভাবে পিছিয়ে পড়াদের জন্য ১০% সংরক্ষনের বিরোধিতা করছেন কেন, সেই প্রশ্নও করা হয় তাকে। একের পর এক প্রশ্নবানে জর্জরিত হয়ে মুখের ভাষা হারিয়ে ফেলেন তিনি। জনতার মধ্য থেকে কানহাইয়াকে ‘দেশদ্রোহী’ বলেও সম্বোধন করা হয়।

আরও পড়ুনঃ কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঝাঁটা মেরে এলাকা থেকে তাড়ানোর ফতেয়া তৃণমূল বিধায়ক ও মন্ত্রীর

এক সময়ে ভিড়ের জনতার উদ্দেশ্যে কানহাইয়া প্রশ্ন করেন, তারা বিজেপির সমর্থক কিনা? কিন্তু সেই বিষয়ে জনতার তরফে বলা হয়, তারা নোটার সমর্থক। অনতিবিলম্বে কোনওক্রমে পাশ কাটিয়ে কানহাইয়ার গাড়ি বেরিয়ে যায়। পরে কানাইহার তরফ থেকে বিক্ষোভকারীদের বিজেপি সমর্থক বলে অভিযোগ করা হয়।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় ভোটে দুই দুর্গা, দুই পুরুষের লড়াইয়ে প্রচারে দাপট দেখাচ্ছেন দুই নারী

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি ভিডিও সামনে আসে। এর মধ্যে একটি ভিডিওতে দেখা যায়, কিছু ছাত্র ছাত্রী কাশ্মীরের আজাদির পক্ষে শ্লোগান দিচ্ছে। শোনা যায় “ভারত তেরে টুকরে হোঙ্গে, ইনশাল্লাহ ইনশাল্লাহ” শ্লোগানও।

আরও পড়ুনঃ হাত মেলাতে গিয়ে মিমির হাত মুচড়ে দিলেন ফ্যান, যন্ত্রণায় কেঁদে ফেললেন অভিনেত্রী

এরপরেই দেশদ্রোহীতার অভিযোগে অভিযুক্ত হিসেবে গ্রেফতার করা হয় কানহাইয়া কুমারকে। এদিন সেই শ্লোগানের ব্যাপারেও তাকে প্রশ্ন করে উত্তেজিত জনতা। পুলিশি জেরায় যদিও তখন কানহাইয়া জানিয়েছিলেন, কাশ্মীরের আজাদি নয়, দেশের বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা থেকে আজাদি চান তিনি। এবার প্রার্থী হয়ে তাঁর মত নিয়ে কানহাইয়া ভোটে জিততে পারেন কিনা সেটাই এখন দেখার।

আরও পড়ুনঃ তৃণমূলের হয়ে প্রচার করে ভারতের কালো তালিকায় বাংলাদেশী অভিনেতা ফিরদৌস

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন