ভোটের মুখে তৃণমূল সভাপতির বাড়ি থেকে উদ্ধার অস্ত্র ও কোটি কোটি টাকা

1004
ভোটের মুখে তৃণমূল সভাপতির বাড়ি থেকে উদ্ধার অস্ত্র ও কোটি কোটি টাকা/The News বাংলা
ভোটের মুখে তৃণমূল সভাপতির বাড়ি থেকে উদ্ধার অস্ত্র ও কোটি কোটি টাকা/The News বাংলা

ভোট প্রচারের মাঝেই চরম অস্বস্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস। নেতার বাড়ি থেকে উদ্ধার আগ্নেয়াস্ত্র ও কোটি কোটি টাকা। আর এরপরেই বিরোধীদের তোপের মুখে পড়েছে তৃণমূল। এত টাকা ও বেআইনি অস্ত্র তৃণমূল নেতার বাড়িতে কেন? উঠছে প্রশ্ন।

আরও পড়ুনঃ মমতার দাবি না মেনে জঙ্গলমহল থেকে ৩০ কোম্পানি বাহিনী তুলছে নির্বাচন কমিশন

হুগলি জেলার তৃণমূল কংগ্রেস নেতা দিলীপ দাসের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে আটক করা হয়েছে নগদ ২ কোটি টাকা, ৪০ লক্ষ টাকার সোনার গয়না এবং অবৈধ নাইন এম এম পিস্তল। পেশায় উনি ছিলেন প্রাথমিক শিক্ষক। একজন প্রাথমিক শিক্ষকের এত সম্পত্তি কীভাবে সম্ভব হলো? উঠছে প্রশ্ন। এত টাকা ও অস্ত্র কি ভোটে কাজে লাগাতেই কি আনা হয়েছে, প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে আয়কর দফতরও। জানান হয়েছে নির্বাচন কমিশনেও।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় উন্নতিতে বাধা ‘স্পীডব্রেকার’ মমতা, কটাক্ষ মোদীর

এলাকার মানুষদের থেকে জানা যায়, একজন সাধারণ স্কুল শিক্ষক থেকে তৃণমূল ব্লক সভাপতি হবার পরেই কোটিপতিতে পরিণত হয়েছেন দিলীপ দাস। চুঁচুড়া-মগড়া তৃণমূল ব্লক সভাপতি এবং সেই অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক দিলীপ দাসের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে কোটি টাকারও বেশি নগদ উদ্ধার করেছে আয়কর দফতরের আধিকারিকরা। গ্রেফতার করা হয়েছে ওই নেতার ছেলেকে।

আরও পড়ুনঃ গাধা না ঘোড়া, দিনভর বিতর্কের পর জানা গেল খচ্চরের পিঠে ভোটপ্রার্থী

তল্লাশি করতে গিয়ে উদ্ধার হয়েছে দুটি অত্যাধুনিক নাইন এম এম আগ্নেয়াস্ত্র। আয়কর দফতরের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, এই আগ্নেয়াস্ত্রগুলির একটি ইতালির এবং অন্যটি জাপানি। ভোটে সন্ত্রাস সৃষ্টি করতেই কি এই অস্ত্র আনা হয়েছিল, খতিয়ে দেখছে গোয়েন্দারা। এটাকেই ভোট প্রচারের হাতিয়ার করছে বিরোধী দলগুলি।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্থানে বিমানবাহিনীর হামলা, বাংলায় কাঁদল দিদি

আয়কর দফতরের কাছে আগে থেকেই খবর ছিল যে, প্রচুর বেহিসেবি সম্পত্তি রয়েছে দিলীপ দাসের। সেই সূত্রেই দিলীপবাবুর বাড়িতে হানা দেন আধিকারিকরা। এরপর আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার হওয়ায় দিলীপ দাসের ছেলে জয়প্রকাশ দাসকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেন আয়কর দফতরের আধিকারিকরা।

আরও পড়ুনঃ দিল্লিতে গান্ধী ও বাংলায় বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারতন্ত্রকে ব্রিগেডে খোঁচা মোদীর

আয়কর দফতরের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, নগদ এবং আগ্নেয়াস্ত্রের পাশাপাশি উদ্ধার হয়েছে প্রচুর নথিও। আয়কর হানার প্রতিটি মুহূর্ত ভিডিও করে রাখা হয়েছে। এই অস্ত্র ও টাকা উদ্ধারের পর রাজ্য জুড়ে ভোটের সময় তৃণমূল জোর ধাক্কা খেল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। এটাকেই ভোট প্রচারের হাতিয়ার করেছে বিজেপি, বাম ও কংগ্রেস।

আরও পড়ুনঃ চৌকিদারের ডান্ডা দেখে ভয় পেয়েছে কংগ্রেস, মন্তব্য বিবেকের

বুধবার সকালেই হুগলি স্টেশন সংলগ্ন এই তৃণমূল নেতার বাড়িতে হানা দেন আয়কর দফতর। চারটি গাড়িতে করে আসেন বারো জন অফিসার। গোটা বাড়ি ঘিরে ফেলেন তাঁরা। বাড়ির মেন গেট বন্ধ থাকায় পাঁচিল টপকেই ভিতরে ঢোকেন কয়েকজন অফিসার।

আরও পড়ুনঃ অ্যান্টি স্যাটেলাইট টেস্ট নিয়ে নাসার অভিযোগ উড়িয়ে দিল ভারত

আয়কর হানার ব্যাপারে আগে থেকেই আন্দাজ করেছিলেন দিলীপবাবু। আর সেই জন্যেই স্ত্রী কৃষ্ণা দাসকে নিয়ে চম্পট দেন তিনি। তবে সূত্রের খবর, পরে দিলীপ দাস এবং কৃষ্ণা দাস বাড়ি ফিরে আসেন।

আরও পড়ুনঃ দুই বছর পর পাহাড়ে ফের প্রকাশ্যে বিমল গুরুং রোশন গিরি

প্রসঙ্গত দিলীপ বাবুর স্ত্রী কৃষ্ণা দাস কোদালিয়া ২ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান এবং বর্তমান সদস্যা। হয়ত এইবারেও তাঁকেই প্রধান করার কথা ভাবা হচ্ছিল। চুঁচুড়ার বিধায়ক অসিত মজুমদার কৃষ্ণা দাসকেই প্রধান করার পক্ষে ছিলেন। দিলিপবাবুদের পরিবারের এই প্রভাব প্রতিপত্তি নিয়ে এলাকার মানুষজনের মনে বহুদিন ধরেই নানা প্রশ্ন ছিল। একজন সাধারণ স্কুল শিক্ষক হয়েও দিলীপ বাবু ও তাঁর পরিবার ফি বছর ইউরোপ ট্যুরে যেতেন এই নিয়েও এলাকার মানুষের মনে প্রশ্ন তৈরি হয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ মমতার সঙ্গে পারবে না, রাজ্যস্তরের অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে মোদীকে লড়ার চ্যালেঞ্জ

জানা গিয়েছে, তল্লাশি চলাকালীন কাউকে বাড়ি থেকে বেরোতে দেওয়া হয়নি। বাড়ির সব জায়গা কার্যত তোলপাড় করে তল্লাশি চালান আয়কর দফতরের অফিসাররা। এর পর আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার হওয়ায় দিলীপ দাসের ছেলে জয়প্রকাশ দাসকে গভীর রাতে পুলিশের হাতে তুলে দেন আয়কর দফতরের আধিকারিকরা।

আরও পড়ুনঃ বিবেক দুবেকে তৃণমূলের এজেন্ট বলে কটাক্ষ মুকুল রায়ের

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন