সোনিকে হারিয়ে হতাশ মোহনবাগানীদের উজ্জীবিত করলো ওমর

2607

শান্তনু সরস্বতী, কলকাতা: হাইতির জাতীয় দলের প্রাক্তনী সোনি নোর্দিকে একরকম না-ই বলে দিল মোহনবাগান ক্লাবকর্তারা। সোনির বদলে মোহনবাগানে সবুজ মেরুন জার্সি গায়ে এই মরসুমে খেলতে দেখা যাবে মিশরের ওমর নবিল রাশাদ এলহুসেইনিকে।

সৃঞ্জয় বসু ও দেবাশিস দত্তের হাত ধরেই ভোটের দামামায় দিশেহারা মোহনবাগান সমর্থকরা এখন তাই কিছুটা হলেও উজ্জীবিত।

বেশ কয়েকবছর টানা হাইতিয়ান তারকা মিডফিল্ডারের টাকা বাড়ানোর চাপের কাছে নতিস্বীকার করলেও, এই বছর কোচ শংকরলাল চক্রবর্তীর কথাতেই সোনিকে না বলেছেন মোহনবাগান ক্লাব কর্তারা। আহত সোনি গতবছরম মরসুমের মাঝপথে তার পুরনো চোটে কাবু হওয়ায়, বাধ্য হয়েই তাকে রিলিজ করে দিয়েছিল সৃঞ্জয় বসু, দেবাশিস দত্তরা।

এই বছর মোহনবাগান জার্সি গায়ে চাপানোর আগ্রহ দেখালেও, ফিটনেস ও মেডিক্যাল পরীক্ষা দিতে অস্বীকার করে সোনি। তাই তার জায়গায় মিশরের তারকা মিডফিল্ডার, ওমর নবিল রাশাদ এলহুসেইনি- কেই সই করালো মোহনবাগান কর্তারা।

হাইতিয়ান তারকা মিডফিল্ডারের মতো ভারতীয় উপমহাদেশে খেলার অভিজ্ঞতা আছে এই মিশরীয় ফুটবলারের। মোহনবাগান ক্লাবে যোগ দেওয়ার আগে সোনি যেমন বাংলাদেশের শেখ রাসেল জামাল ধানমন্ডিতে খেলতো, তেমনই ওমর এলহুসেইনি এক মরসুম খেলেছে ইন্দোনেশিয়ার প্রিমিয়ার ডিভিশন দল পারসেলা লেমাঙ্গনে। ইন্দোনেশিয়ায় অবশ্য তেমন সফল নয় ওমর। তার দল প্রথম ডিভিশনের দলগুলির মধ্যে কোনও পয়েন্ট না পেয়ে তালিকার শেষ স্থানটি পায়।

২০১৬ সালে ওমরের সঙ্গে চুক্তি শেষ হওয়ার আগেই তাকে রিলিজ করে দেয় তার ক্লাব পারসেলা লেমাঙ্গন। পারসেলা ওমরকে রিলিজ করে দেওয়ার পর পাঁচ ফুট নয় ইঞ্চি লম্বা এই আক্রমণাত্মক মিডফিল্ডার দু-বছরের চুক্তিতে যোগ দেয় আফ্রিকার মালটার ক্লাব জেজটুন কোরিন্থিয়ান এফসিতে।

আফ্রিকার ক্লাবটি আর নতুন করে চুক্তি করেনি ওমরের সঙ্গে, বলে জানা গিয়েছে ট্রান্সফার মার্কেট ডট কম ওয়েবসাইট থেকে। ফ্রি ফুটবলার হওয়ায় ওমরকে সই করাতে অসুবিধা হয়নি মোহনবাগানের। ট্রান্সফার মার্কেট ডট কম-এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ৩২ বছর বয়সী মিশরীয় ওমরের দাম আন্তর্জাতিক ফুটবলে ভারতীয় টাকায় এক কোটি আশি লক্ষ টাকা।

নিজের পছন্দের জায়গা আক্রমণাত্মক মিডফিল্ডার হলেও ওমর এলহুসেইনি স্ট্রাইকার ও বাঁপ্রান্তিক উইংঙ্গার হিসেবেও খেলতে স্বচ্ছন্দ। মিশরের প্রথম ডিভিশন ক্লাব এল সার্কিয়াডোখান এফসি-তে ২০১০ সালে ওমরের ফুটবল কেরিয়ারের শুরু। এল সার্খিয়া ক্লাবে দুবছর কাটিয়ে মিশরীয় এই ফুটবলার যোগ দেয় ওই দেশেরই প্রথম ডিভিশন ক্লাব কাহরাবা ইসমাইলিয়া এফসিতে।

২০১২-২০১৪ সেখানে কাটিয়ে ওমর যোগ দেয় এস্তোনিয়ার প্রথম ডিভিশন ক্লাব লেভাদিন তালিনে। লেভাদিন তালিনের হয়ে ২০১৪-২০১৬ সালে জাতীয় লিগে মোট ৭৩ ম্যাচে ১২ গোল করে এই আক্রমণাত্মক মিডফিল্ডার। ইউটিউবে ওমরের যে গোলগুলির ভিডিও পোস্ট করা আছে, তা সবই ওই লেভাদিন তালিন এফসির হয়ে ২০১৫ সালে করা। মালটার দলটির হয়ে ১৩ ম্যাচে ওমরের গোল সংখ্যা সেখানে তিনটি।

আফ্রিকার এই দেশটির ফিফা তালিকায় যেখানে এই অক্টোবরে স্থান ১৬৯, সেখানে স্টিফেন কনস্ট্যানটাইনের ভারতের স্থান ৯৭। আর ইন্দোনেশিয়ার স্থান ১৬৪। একশো শতাংশ ফিট সোনি নোর্দির মতো বাঁপায়ের শিল্পী ফুটবলার না হলেও, ওমরের পায়ে ভেল্কি আছে। এস্তোনিয়ার জাতীয় লিগে করা ওর গোলগুলির ভিডিওতে দেখা গিয়েছে পেনাল্টি বক্সের মধ্যে দু-তিনজনকে কাটিয়ে গোল করতে।

তবে শংকরলাল চক্রবর্তী বুদ্ধিমান কোচ। একশো শতাংশ ফিট হলে ওমরকে তার পছন্দের জায়গাতেই খেলাবে বলে বিশ্বাস মোহনবাগান জনতার। ওমর সচল হলে দুই স্ট্রাইকার ক্যামেরুনের দিপান্দা ডিকা ও উগান্ডার হেনরি কিসেকার জন্য বলের সাপ্লাইয়ের অভাব হবে না। চোটপ্রবণ জাপানি মিডিও ফিট থাকলে আর কোনও সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার নেবে না গঙ্গাপাড়ের ক্লাবটি। ষষ্ঠ বিদেশি হিসেবে তাই এখন একজন ভাল মানের ডিফেন্ডার খুঁজছে ক্লাব।

ক্লাব সমর্থকদের আপাতত উজ্জীবিত করতে সক্ষম হলেও আই লিগে সোনি নোর্দির পরিবর্তন হিসেবে কতটা সফল হবে এই মিশরীয় ফুটবলার তা বেশ কয়েকটি ম্যাচ না গেলে বোঝা যাবে না। ওমর অবশ্য তার মোহনবাগান ক্লাবে যোগদানের বিষয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত।

রাজধানী কায়রোয় ভারতীয় দূতাবাসের অফিসারদের ব্যবহারে সে যে বেশ আপ্লুত তা সোস্যাল মিডিয়াতে জানাতে দ্বিধা করেনি। আগামী সোম অথবা বুধবার ওমরের কলকাতায় আসার কথা একরকম পাকা। মোহনবাগান সমর্থকরা তার আসার বিষয়ে কতখানি খুশি তা জানা যাচ্ছে সোস্যাল মিডিয়ায় চোখ রাখলেই।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন