কাশ্মীরে পাক হামলার পর কলকাতা থেকে গ্রেফতার বাংলাদেশি জামাত জঙ্গি

937
কাশ্মীরে পাক হামলার পর এবার কলকাতা থেকে গ্রেফতার বাংলাদেশী জামাত জঙ্গি/The News বাংলা
কাশ্মীরে পাক হামলার পর এবার কলকাতা থেকে গ্রেফতার বাংলাদেশী জামাত জঙ্গি/The News বাংলা

কাশ্মীরে ভয়ঙ্কর পাক হামলার পর এবার কলকাতা থেকে গ্রেফতার বাংলাদেশি জামাত উল মুজাহিদিন জঙ্গি। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স বাবুঘাট থেকে গ্রেফতার করেছে ওই বাংলাদেশি জামাত জঙ্গিকে। কি কারণে ওই জেএমবি জঙ্গি এই বাংলায় এসেছিল তা তদন্ত করে দেখছে গোয়েন্দারা। বর্ধমানে খাগরাগড় বোমা বিস্ফোরণ কাণ্ডেও এই জঙ্গি জড়িত ছিল বলেই পুলিশের রিপোর্ট।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানকে বয়কট করে ভারতের হাত ধরল সৌদি আরব

কলকাতা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গোপন সূত্রে নির্দিষ্ট খবর পেয়েই শনিবার ভোরেই বাবুঘাট অঞ্চল থেকে গ্রেফতার করা হয় ওই বাংলাদেশি জামাত উল মুজাহিদিন জঙ্গিকে। আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ ওরফে আক্তারুল নামের ওই জঙ্গি ২০১৮ সালে বৌদ্ধ গয়া বোমা বিস্ফোরণের মাস্টার মাইন্ড বলেই জানিয়েছে কলকাতা পুলিশ। বর্ধমানে খাগরাগড় বোমা তৈরি কাণ্ডেও এই জঙ্গি জড়িত ছিল বলেই পুলিশের রিপোর্ট।

আরও পড়ুনঃ তদন্তের আগেই জঙ্গি হামলায় পাকিস্তানকে দোষী বলা ঠিক নয় বললেন মমতা

জানা গেছে, STF PS Case No. 1/2018 dated 02.02.2018 u/s 121/121A/123/125/120B IPC, 4/5 E.S Act and 18/20 U.A.P.A Act 1967 ধারায় এই জঙ্গির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছে স্পেশাল টাস্ক ফোর্স। এই আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ ওরফে আক্তারুল নামের এই জঙ্গির বাড়ি বাংলাদেশের বারপেটা থানার চেংলিমারি পোস্ট অফিসের পানপাড়া গ্রামে। এর বাবার নাম আলিমুদ্দিন ইসলাম।

আরও পড়ুনঃ প্রাক্তন সেনাকর্তাকে রাজ্যপাল করে কাশ্মীরে পাক জঙ্গি নিধনে নামছে কেন্দ্র

ভোরবেলায় বাবুঘাটের কাছে এই জামাত উল মুজাহিদিন জঙ্গি কি করছিল সেটাই খতিয়ে দেখছে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ। এই জঙ্গি ভারতের আসাম থেকে পড়াশোনা করেছে। পরে এক ট্রাক ড্রাইভারের হেল্পার হিসাবেও কাজ করেছে। বাংলাদেশি জামাত উল মুজাহিদিন জঙ্গি জাহিদুল ইসলাম ওরফে কৌসর ও আব্দুল মাজিদের সংস্পর্শে এসে সে জঙ্গি দলে নাম লেখায়।

আরও পড়ুনঃ পাক জঙ্গিদের খুঁজে বের করে মারতে সেনাকে পূর্ণ স্বাধীনতা দিল মোদী সরকার

জামাত উল মুজাহিদিন জঙ্গি কৌসর, কালু, আদিল, হাসান, উমর, পয়গম্বর, কাদের গাজি, কৌসর এইসব জঙ্গিদের কাছে সে ট্রেনিং নেয় বলেই জানা গেছে। ২০১৮র জানুয়ারীতে এরা সবাই মিলে বৌদ্ধ গয়া যায় ও সেখানে স্থানীয় জঙ্গিদের সঙ্গে মিলে প্রথমে রেইকি করে ও তারপর বোমা বিস্ফোরণ ঘটায়। বৌদ্ধ গয়ায় বোমা বিস্ফোরণ ঘটানোর পর আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ ওরফে আক্তারুল নামের ওই জঙ্গি ব্যাঙ্গালোর গিয়ে একটি ডাকাত দলে নাম লেখায়। নিজেকে লুকিয়ে রাখতেই সে এই পদ্ধতি নেয় বলেই মনে করছে গোয়েন্দারা।

আরও পড়ুনঃ দেশ জুড়ে বদলার দাবি, কাউকে ছাড়া হবে না জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

বৌদ্ধ গয়ার মতই কলকাতায় রেইকি করতে এসেছিল এই জঙ্গি, মনে করছে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দারা। বৌদ্ধ গয়া বোমা বিস্ফোরণ এর আর এক পাণ্ডা কৌসরকে জেল থেকে আদালতে যাওয়ার সময় কি করে ছাড়িয়ে নেওয়া যায়, সেই পরিকল্পনা করেই কলকাতা এসেছিল সে। এমনটাই মনে করছে গোয়েন্দারা। এই জঙ্গির কাছ থেকে বেশ কিছু ম্যাপ ও কাগজপত্র উদ্ধার করেছে পুলিস। শনিবারই তাকে ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হয়।

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন