কাশ্মীরের পুলওয়ামায় পাক জইশ ই মহম্মদ আত্মঘাতী হামলায় শহিদ বাঙালি

372
কাশ্মীরের পুলওয়ামায় পাক জইশ ই মহম্মদ আত্মঘাতী হামলায় শহিদ বাঙালি/The News বাংলা
কাশ্মীরের পুলওয়ামায় পাক জইশ ই মহম্মদ আত্মঘাতী হামলায় শহিদ বাঙালি/The News বাংলা

বৃহস্পতিবার কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলায় ৪৪ জন সিআরপিএফ জওয়ান শহিদ হয়েছেন। তার মধ্যেই আছেন বাংলার যুবক বাবলু সাঁতরাও। জইশ ই মহম্মদের করা এই আত্মঘাতী হামলায় ৪৪ জন সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হয়েছেন। সিআরপিএফের জওয়ান বাবলু তাঁদেরই এক জন। হাওড়ার বাউরিয়ার চককাশি রাজবংশী পাড়ার বাসিন্দা বাবলু রেখে গেলেন স্ত্রী ও চার বছরের মেয়েকে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সাঁতরা পরিবার এই চরম দুঃসংবাদ জানতে পারেন। গোটা পাড়ায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

বৃহস্পতিবার জম্মু-শ্রীনগর জাতীয় সড়ক দিয়ে সিআরপিএফ জওয়ানদের ৫৪ নম্বর ব্যাটেলিয়নের একটি কনভয় যাচ্ছিল। প্রায় ২৫০০ জওয়ানের একটি দলকে জম্মু থেকে কাশ্মীর নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। এই কনভয়েই একটি গাড়িতে বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা। জানা গেছে, এই গাড়িতেই ছিলেন হাওড়ার বাবলু সাঁতরা। প্রথমে সেই কনভয়ে আইইডি বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা। সেনা সূত্রে খবর, বিস্ফোরক বোঝাই একটি গাড়ি গিয়ে ধাক্কা মারে সিআরপিএফ এর একটি গাড়িতে। প্রায় ৩৫০ কেজি বিস্ফোরক ছিল ওই মহিন্দ্রা গাড়িতে।

জম্মু কাশ্মীরে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা, মৃত অসংখ্য জওয়ান/The News বাংলা
জম্মু কাশ্মীরে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা, মৃত অসংখ্য জওয়ান/The News বাংলা

জানা গিয়েছে, বিস্ফোরক ভর্তি গাড়ি চালাচ্ছিল জইশ জঙ্গি আদিল আহমেদ। বছর দেড়েক আগে জঙ্গি সগঠনে যোগ দিয়েছিল আদিল। এই বিস্ফোরণেই নিহত হন ৪৪জন জওয়ান। তারপর ছত্রভঙ্গ জওয়ানদের উপর গুলিবৃষ্টি করতে থাকে জঙ্গিরা। এই হামলার দায় নিয়েছে জইশ ই মহম্মদ। শুক্রবারই কাশ্মীরে যাচ্ছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং, সঙ্গে সিআরপিএফ এর ডিজি। সকালেই উচ্চপর্যায়ের নিরাপত্তা বৈঠক ডাকেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সেনা সূত্রে খবর, জম্মু-শ্রীনগর হাইওয়েতে অবন্তীপুরা এলাকায় হঠাৎই কনভয়ের মাঝে ঢুকে আসে একটি মহিন্দ্রা স্করপিও গাড়ি। যাতে প্রায় ৩৫০ কেজি আইইডি বোঝাই করা ছিল৷ সেনা কনভয়ের সঙ্গে ধাক্কায় প্রবল বিস্ফোরণ ঘটে। এরপর কনভয়টিকে ঘিরে ফেলে জঙ্গিরা। লাগাতার গুলি চালিয়ে ঝাঁজরা করে দেওয়া হয় গাড়িটিকে। শহিদ হন ৪৪ জন সিআরপিএফ জওয়ান, গুরুতর জখম হয়েছেন আরও ১৫ জন। বেসরকারি মতে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

দেশ জুড়ে বদলার দাবি, কাউকে ছাড়া হবে না জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী/The News বাংলা
দেশ জুড়ে বদলার দাবি, কাউকে ছাড়া হবে না জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী/The News বাংলা

দেশ জুড়ে বদলার দাবি, নিকেশ করা হোক কাশ্মীরের জঙ্গিদের। এখন আর কোন আলোচনা নয়, বদলার দাবি গোটা দেশ জুড়ে। জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় হামলার ঘটনার নিন্দা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ট্যুইটে প্রধানমন্ত্রী লেখেন, “পুলওয়ামায় সিআরপিএফ জওয়ানদের ওপর হামলার ঘটনা নিন্দনীয়। আমি এই ধরণের কারপুরুষোচিত হামলার তীব্র নিন্দা করছি। আমাদের বীর নিরাপত্তাকর্মীদের বলিদান বিফলে যাবে না। বীর শহিদদের পাশে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দাঁড়াবে গোটা দেশ। আহতরা দ্রুত আরোগ্যলাভ করুন”। এদিকে ক্রিকেটের পাশাপাশি পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের মাটিতে সমস্ত রকম খেলা নিষিদ্ধ করা হল।

লোকসভা নির্বাচনের আগে জম্মু-কাশ্মীরে এই বড়সড় জঙ্গি হামলা ভোট বানচাল করা ও সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের বদলা বলেই দাবি করেছে জঙ্গি সংগঠন জইশ ই মহম্মদ। তদন্তে উঠে আসছে, বিস্ফোরক বোঝাই গাড়ি নিয়ে আত্মঘাতী হামলার তথ্য। আদিল আহমেদ নামে এক জইশ জঙ্গি এই আত্মঘাতী হামলা চালায় বলেই প্রাথমিক রিপোর্ট। এই ঘটনায় পাকিস্তানের হাত আছে, পরিস্কার জানালেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং।

দেশ জুড়ে বদলার দাবি, কাউকে ছাড়া হবে না জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী/The News বাংলা
দেশ জুড়ে বদলার দাবি, কাউকে ছাড়া হবে না জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী/The News বাংলা

ঘটনার দায় স্বীকার করেছে পাক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ৷ বিস্ফোরণে যুক্ত আদিল আহমেদ নামে এক জইশ জঙ্গির নাম উঠে আসছে তদন্তে। তার ছবিও প্রকাশ করা হয়েছে। সেনা সূত্রে খবর, বিস্ফোরক ভরতি বোঝাই গাড়িটি আদিলই চালাচ্ছিল৷। বেশ কিছু জঙ্গি আগে থেকেই একটু উঁচু জায়গায় পজিশন নিয়ে রেখেছিল বলেই মনে করা হচ্ছে। এটাকে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের বদলা বলেই দাবি করেছে জঙ্গি সংগঠন জইশ ই মহম্মদ।

গতকাল থেকেই জঙ্গিদের খোঁজে চলছে নাকা তল্লাশি। লোকসভার আগে এই ধরনের জঙ্গি হামলার আভাস আগেই দিয়ে রেখেছিলেন গোয়েন্দারা। এমনকী, ৮-১০ দিন আগেও উপত্যকার সেনাকে সতর্ক করা হয় বলে সূত্রের খবর৷ কিন্তু তাও কেন এই ধরনের হামলা এড়ানো গেল না, তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন৷ উরির পর এই প্রথম এত বড় মাপের একটি হামলা ঘটাল জঙ্গিরা।

ঘটনার খবর পাওয়ার পরেই সাঁতরা পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। বাড়িতে ভিড় করেছেন গোটা পাড়ার মানুষ। পরিবারটি যাতে অসুবিধার মধ্যে না পরে তার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে দরবার করবে পাড়ার মানুষ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন