বাংলার সব ঘটনা ছেড়ে, দিল্লি গেল তৃণমূলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিম

171
বাংলার সব ঘটনা ছেড়ে, দিল্লি গেল তৃণমূলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিম
TMC Fact Finding Team

মাটিয়া, মালদহ, হাঁসখালি, নামখানা, বোলপুর, পিংলা, নবদ্বীপ; রাজ্য জুড়ে একের পর এক নারী, নাবালিকা গণ’ধ-র্ষণ ও নি-র্যাতনের ঘটনা ঘটেছে; কিন্তু কোথাও দেখা যায়নি তৃণমূলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিমকে। দেখা গিয়েছিল হাথরসে; কিন্তু দেখা যায়নি হাঁসখালিতে। এবার দিল্লির জাহাঙ্গিরপুরীতে ঘটনাস্থল ঘুরে দেখতে; শুক্রবার দিল্লি যায় তৃণমূলের ‘ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিম’। আর এরই চরম সমালোচনা করলেন বিজেপি সাংসদ দিলীপ ঘোষ।

কাকলি ঘোষ দস্তিদার, অর্পিতা ঘোষ, অপরূপা পোদ্দার, শতাব্দী রায়ের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিম; জাহাঙ্গিরপুরীর বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলার উদ্দেশ্যে রাজধানী শহরে গেলেও; শেষ পর্যন্ত হিংসার ঘটনা ঘটেছিল যেখানে সেখানে ঢুকতে পারল না তৃণমূলের এই ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিম! তৃণমূলের অভিযোগ, তৃণমূলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিমকে; ‘আটকায়’ দিল্লি পুলিশ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অধীনস্থ দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে; ওঠে তৃণমূলকে বাধা দেওয়ার অভিযোগ! তৃণমূলের এই ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিমের; সফরের তদারকির দায়িত্বে ছিলেন সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়।

এরপরেই তৃণমূল নেতা-নেত্রীদের দিল্লি যাওয়া নিয়ে; সরব হয় বিজেপি নেতৃত্ব। দিলীপ ঘোষ থেকে শুভেন্দু অধিকারী, সুকান্ত মজুমদার থেকে শমীক ভট্টাচার্য; প্রত্যেকেই তৃণমূলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিমকে কটাক্ষ করেন। শনিবার সকালে জাহাঙ্গিরপুরীতে তৃণমূলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিম পাঠানো নিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন; “রাজ্যে হিংসা বন্ধ করতে পারেন না; নাটক করতে ওখানে গেছেন। আসলে ছবি তুলতে গিয়েছিলেন; ওঁরা এটাই চান”।

শুভেন্দু অধিকারী বলেছেন; “বাংলার কোথাও যেতে পারল না তৃণমূলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিম; তবে পৌঁছে গেল দিল্লিতে। দিদিমণির নাটক আর নিচ্ছে না বাংলার মানুষ”। সুকান্ত মজুমদার ও শমীক ভট্টাচার্যও; একই সুরে তৃণমূলকে আক্রমণ করেন।

তবে বিজেপিকে একহাত নেন; তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, “উত্তরপ্রদেশ ও গুজরাতের মতন রাজধানী দিল্লিতেও সাম্প্র’দায়িক উস-কানি দিচ্ছে বিজেপি। দেশের পক্ষে লজ্জা ও বিপদজনক ঘটনা এটি”। কাকলি ঘোষ দস্তিদার, অর্পিতা ঘোষ, অপরূপা পোদ্দার, শতাব্দী রায়ও একযোগে বিজেপিকে একহাত নেন; দিল্লির ঘটনা নিয়ে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন