ভারত সরকারের চাপে লাদাখ থেকে সেনা সরাতে বাধ্য হল চিন

54
ভারত সরকারের চাপে লাদাখ থেকে সেনা সরাতে বাধ্য হল চিন
ভারত সরকারের চাপে লাদাখ থেকে সেনা সরাতে বাধ্য হল চিন

ভারত সরকারের চাপে পড়ে, লাদাখ সীমান্ত থেকে সেনা সরাতে বাধ্য হল চিন। ২০২০ সালের মে মাসে গালওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষের পরেই, ভারত-চিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অবনতি ঘটে। পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় চিন ও ভারতীয় সেনার মুখোমুখি সংঘর্ষের পর থেকেই, দুই দেশের সম্পর্কের অবনতি হয়। দু’পক্ষই বাড়তি সেনা মোতায়েন করে সীমান্তে। তারপর থেকেই লাদাখ সীমান্তের সমস্যাও গুরুতর আকার ধারণ করেছে। বারংবার বৈঠকে বসেও কোনও সমাধানসূত্র মিলছিল না। অবশেষে লাদাখ সীমান্তের গোগরা হটস্প্রিং থেকে সেনা সরানোর সিদ্ধান্ত নিল ভারত ও চিন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দুই দেশের সেনার ১৬ তম কমান্ডার পর্যায়ের বৈঠকের পর যৌথ বিবৃতিতে দু পক্ষই সেনা সরিয়ে নেবার কথা জানানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার এক যৌথ বিবৃতিতে ভারত ও চিন জানিয়েছে, ১৬ রাউন্ড ভারত-চিন কমান্ডার পর্যায়ের বৈঠকের পর ৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ থেকে গোগরা হট স্প্রিং এলাকা থেকে ভারত ও চিন সেনা সরাতে শুরু করেছে। দু’দেশের সীমান্ত এলাকায় শান্তি ও সৌভ্রাতৃত্ব বজায় রাখতে এই সিদ্ধন্ত নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ এতকাণ্ডের পরেও কি, তৃণমূল নেতা মন্ত্রীদের ‘চাকরি চুরি’তে উৎসাহ দিলেন মমতা

আগামী ১৫-১৬ সেপ্টেম্বর সমরখন্দে এসসিও (SCO) সম্মেলনের ফাঁকে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের মধ্যে বৈঠকের সম্ভাবনা রয়েছে। এসসিও সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যোগ দেওয়ার আগেই, গোগরা হট স্প্রিং থেকে দুই দেশের সেনা সরানোর সিদ্ধান্ত ইঙ্গিতবাহী বলেই মনে করছে আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক মহল।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন