বিরোধীদের অভিযোগ ও মমতা প্রশাসনের রিপোর্ট নিতে বাংলায় নির্বাচন কমিশন

344
বিরোধীদের অভিযোগ ও মমতা প্রশাসনের রিপোর্ট নিতে বাংলায় নির্বাচন কমিশন
বিরোধীদের অভিযোগ ও মমতা প্রশাসনের রিপোর্ট নিতে বাংলায় নির্বাচন কমিশন/The News বাংলা

বুধবার রাতেই শহর কলকাতায় এসে নামলেন চীফ ইলেকশন কমিশনার সুনীল অরোরার নেতৃত্বে কেন্দ্র নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। বিমানবন্দর থেকে তাঁরা সোজা চলে আসেন ধর্মতলা লাগোয়া একটি বেসরকারি হোটেলে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯.৩০ থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত রাজ্যের সব রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে বৈঠক করবে কমিশন। প্রত্যেক রাজনৈতিক দলকে ১০ মিনিট করে সময় দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে প্রথম পর্বে ১২টি জেলার জেলাশাসক এবং জেলা পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক করবে কমিশন। এরপর দ্বিপ্রহরিক আহার এর পরে বেলা আড়াইটা থেকে দ্বিতীয় দফায় বাকি ১১টি জেলার জেলাশাসক এবং পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক করবে কমিশন।

আরও পড়ুনঃ কেবল টিভি দেখা নিয়ে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত মানুষকে স্বস্তি দিল কলকাতা হাইকোর্ট
আরও পড়ুনঃ রেড রোড সেনা হত্যায় মাত্র দু বছরের জেল, আজই মুক্তি পেতে পারে নেতার ছেলে

বৈঠক শেষ হয়ে যাওয়ার পর এক্সাইজ কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করবেন নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধিরা। শুক্রবার রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে সকাল ৯.৩০ থেকে প্রথমে নির্বাচন কমিশন বৈঠক করবে ডিজি, স্বরাষ্ট্র সচিব ও মুখ্য সচিবের সঙ্গে। তারপর বৈঠক শেষে সাংবাদিক সম্মেলন করে কমিশনের ফুল বেঞ্চ ফিরে যাবেন দিল্লিতে।

বিরোধীদের অভিযোগ ও মমতা প্রশাসনের রিপোর্ট নিতে বাংলায় নির্বাচন কমিশন
বিরোধীদের অভিযোগ ও মমতা প্রশাসনের রিপোর্ট নিতে বাংলায় নির্বাচন কমিশন/The News বাংলা

বুধবার রাতেই শহরে হাজির নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। বৃহস্পতিবার বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করবে নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। মূলত বিরোধীদের অভিযোগ শুনতে ও মমতা প্রশাসনের রিপোর্ট নিতেই বাংলায় নির্বাচন কমিশন।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক কারা কারা থাকছেন এই ফুল বেঞ্চে। ১.সুনিল আরোরা, মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ২.অশোক লাভাসা, নির্বাচন কমিশনার ৩.উমেশ সিনহা, সিনিয়ার ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার ৪.সন্দীপ সাক্সেনা, ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার ৫.সন্দীপ জেন, ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার ৬.চান্দ্র ভুষণ কুমার, ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার ৭.দীলিপ শর্মা, ডিরেক্টর জেনারেল ৮.ধীরেন্দ্র ওঝা, ডিরেক্টর জেনারেল ও ৯.শেফালির স্মরণ, এডিশনাল ডিরেক্টর জেনারেল।

আরও পড়ুনঃ পঞ্চায়েত ভোটে হিংসার পরেও লোকসভা ভোটে কম কেন্দ্রীয় বাহিনী বাংলায়
আরও পড়ুনঃ মোবাইলেই রাজনাথ সিং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তুমুল কথা কাটাকাটি

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক, নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ এর দুদিনের সফরসুচি।
৩১ তারিখ বৃহস্পতিবার, সকাল ৯:৩০ থেকে ১১টা বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে বৈঠক করবে নির্বাচন কমিশন। ১১:৩০ থেকে ১:৩০ পর্যন্ত রিভিউ মিটিং ডিসট্রিক্ট ইলেকশন অফিসার, পুলিশ সুপার, পুলিশ কমিশনার এবং অন্যান্য ডিস্ট্রিক্ট অফিসারদের সঙ্গে। প্রথম দফায় মোট ১২টি জেলার জেলাশাসক ও জেলা পুলিশ সুপার থাকছেন।

১:৩০ থেকে ২.৩০ পর্যন্ত লাঞ্চ টাইম। ২:৩০ থেকে ৪:৩০ পর্যন্ত রিভিউ মিটিং। ডিসট্রিক্ট ইলেকট্রল অফিসার, বাকি ১২টি জেলার জেলাশাসক ও জেলা পুলিশ সুপার এবং জেলার অন্যান্য আধিকারিকদের সঙ্গে। টি টাইমের পর ৫:০০ থেকে ৬:০০ মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক, নোডাল অফিসার, রাজ্য পুলিশ, সিআরপিএফ ও অন্যান্য নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক।

আরও পড়ুনঃ মমতার স্বরাষ্ট্র সচিবের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা দায়ের এক রোহিঙ্গার
আরও পড়ুনঃ নিয়ম মেনে ভারতের জাতীয় পতাকা তুলে রাখা যায় রাতেও

১লা ফেব্রুয়ারি শুক্রবার সকাল ১০:০০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এক্সপেন্ডিচার নোডাল অফিসার, এক্সাইজ ডিপার্টমেন্ট, ইনকাম ট্যাক্স ডিপার্টমেন্ট, ট্রান্সপোর্ট ডিপার্টমেন্ট, কমার্শিয়াল ট্যাক্স, রেলওয়ে, এয়ারপোর্ট ডিভিশনাল অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক করবে নির্বাচন কমিশন। ১১:১৫ থেকে ১২:১৫ পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ বৈঠক করবে রাজ্য পুলিশের ডিজি ও চিফ সেক্রেটারি এবং হোম সেক্রেটারির সঙ্গে। এরপর ১২:৪৫ থেকে ১:৩০ সাংবাদিক বৈঠক করবে নির্বাচন কমিশন।

শুক্রবারই দিল্লি ফিরে যাবে চীফ ইলেকশন কমিশনার সুনীল অরোরার নেতৃত্বে কেন্দ্র নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। বাংলায় ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনকে সফল ও নিরাপদ ভাবে সম্পন্ন করতে কমিশন কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করে, সেটাই এখন সকলের কাছে আগ্রহের বিষয়।

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন