সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে ফের বেলাগাম সিধু

261
সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে ফের বেলাগাম সিধু /The News বাংলা
সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রমান চেয়ে প্রশ্ন মেহবুবা মুফতির/The News বাংলা

পুলওয়ামায় সন্ত্রাসবাদী হানা নিয়ে কেন্দ্রের ওপর বিরোধীদের আক্রমন চলছেই। ্পুলওয়ামায় হামলার পরেই পাকিস্তানের সাথে আলোচনার প্রস্তাবে বসার পরামর্শ দিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করেছিলেন কংগ্রেস নেতা নভজ্যোত সিং সিধু। এবার মৃত জঙ্গিদের পরিসংখ্যান ও বায়ুসেনার লক্ষ্যভেদ নিয়েও প্রশ্ন তুলে আরেকবার বিতর্কে জড়ালেন সিধু।

কেন্দ্র সরকারকে কটাক্ষ করতে গিয়ে সিধু মন্তব্য করেন, বায়ুসেনা কি ঠিকমত লক্ষ্যভেদ করতে পেরেছে, নাকি শুধু গাছ উপড়ে ফেলে ফিরে এসেছে!

উল্লেখ্য, পাকিস্তানের মাটিতে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পরেই পাকিস্তানের তরফে কারো মৃত্যুর কথা অস্বীকার করা হয় এবং কয়েকটি গাছের ছবি প্রকাশ করা হয়। পাকিস্তানের পক্ষ থেকে বলা হয়, ভারত কোনো লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারেনি, কয়েকটি গাছ ফেলে দিয়েই ভারতীয় বায়ুসেনা ফিরে গেছে।

এরপর মৃতদের সঠিক সংখ্যা কত, তা নিয়ে বিস্তর জলঘোলাও হয়। ভিন্ন ভিন্ন সংখ্যাভিত্তিক মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এই কংগ্রেস নেতা প্রশ্ন তোলেন। মিথ্যা পরিসংখ্যান দিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে রাজনীতি করারও অভিযোগ তোলেন তিনি। মৃতদের সংখ্যাকে বাড়িয়ে বলাকে সিধু নির্বাচনী চমক বলে মন্তব্য করেন।

বায়ুসেনার তরফে ইতিমধ্যেই বলা হয়েছে যে, মৃতদেহ গোনা বায়ুসেনার কাজ নয়, তাদের উদ্দেশ্য আসল লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানা এবং তারা এই উদ্দেশ্য পালনে সফল হয়েছেন। বায়ুসেনা প্রধান বিএস ধানোয়া যখন পরিষ্কার করেই অন্যান্য বিরোধীদের প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন, তখন বায়ুসেনার সাফল্য নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে পুনরায় বিতর্কের জন্ম দিলেন এই কংগ্রেস নেতা।

মাত্র ১৯ মিনিট সময় লেগেছে। তার মধ্যেই কাজ শেষ। পাকিস্তানের মাটিতে ঢুকে ভারতের ১২টি মিরাজ ফাইটার জেট ১০০০ কেজি বোমা ফেলে ধ্বংস করে দিয়েছিল পাকিস্তানের মাটিতে থাকা গড়ে ওঠা সব জঙ্গি ট্রেনিং ক্যাম্প। পুলওয়ামা কাণ্ডের যোগ্য জবাব দিয়েছিল ভারত। নিকেশ ২৫০ থেকে ৩০০ জঙ্গি, এমনটাই দাবি ছিল। ১৯ মিনিটের অপারেশনে মাজা ভেঙ্গে গেছে পাকিস্তানের, বিমান বাহিনী সুত্রে এমনটাই জানান হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোর ৩.৩০ এ শুরু হয় অপারেশন। ভোর সাড়ে তিনটেয় ভারতীয় বায়ুসেনার হিন্ডন এয়ারবেস থেকে আকাশে ওড়ে ১২টি মিরাজ ২০০০ জঙ্গিবিমান পাকিস্তানের বালাকোট এ প্রথম হামলা করে বিমান বাহিনী ভোর ৩.৪৫-৩.৫৩ এর মধ্যে। মুজাফরাবাদ এ ৩.৪৮-৩.৫৫। ও চাকোটিতে বোমা ফেলে ৩.৫৮ থেকে ৪.০৪ এর মধ্যে। ১৯ মিনিটের অপারেশনে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত সীমান্ত পাড়ের পাক জঙ্গি ঘাঁটিগুলি। মৃত ৩০০ জঙ্গি।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন