পাকিস্তান প্রেমী যুবক আসিফের উস্কানিতে মৃত্যুর মুখে বাঙালি ডাক্তার

25310
পাকিস্তান প্রেমী যুবক আসিফের উস্কানিতে মৃত্যুর মুখে বাঙালি ডাক্তার/The News বাংলা
পাকিস্তান প্রেমী যুবক আসিফের উস্কানিতে মৃত্যুর মুখে বাঙালি ডাক্তার/The News বাংলা

একটা উস্কানি, একটা ফেসবুক পোস্ট; আর তাতেই মৃত্যুর মুখে এক জুনিয়ার ডাক্তার। ডাক্তার পরিবহ মুখোপাধ্যায়; মাথায় গুরুতর আঘাত নিয়ে কোমায় যাবার মুখে। কারণ, একটা ফেসবুক লাইভ ও একটা পোস্ট। আর তাতেই ৮৫ বছরের এক সংখ্যালঘু রোগীর মৃত্যুর দায়ে; এনআরএস হাসপাতালে জুনিয়ার ডাক্তাদের; ব্যপক মারধর করল সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজন।

বিজেপি নেতা মুকুল রায় মঙ্গলবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে ইঙ্গিত দিয়েছেন; অভিযুক্তরা সংখ্যালঘু বলেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখনও কোন বক্তব্য রাখেননি। তৃণমূলের তরফে এই অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ এন আর এস কাণ্ডে রাজ্যের সব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে অচলাবস্থা

মৃত ৮৫ বছরের ওই রোগীর নাতি আসিফ আত্তারির ফেসবুক লাইভ ও পোস্টের পরেই; সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে আক্রোশ ছড়িয়ে পরে। আসিফের ফেসবুক প্রোফাইল দেখে স্পষ্ট হয়ে যায়; তার ভালবাসা পাকিস্তানের প্রতি। গোটা ফেসবুক প্রোফাইলে ছত্রে ছত্রে পাকিস্তানের প্রতি ভালবাসার কথা। বাড়িও লেখা পাকিস্তানের লাহোরে।

আর এই যুবকের উস্কানিতেই; মৃত্যুর মুখে বাঙালি ডাক্তার পরিবহ মুখোপাধ্যায়। কিন্তু এখনও এই ঘটনার পরিপেক্ষিতে সরকারি তরফে; কোন ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বা উপযুক্ত শাস্তি দেওয়ার কথা বলা হয়নি। বিদ্যাসাগরের মূর্তি উদ্বোধনে ব্যস্ত মমতা; একবারও হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি বলে অভিযোগ করেছেন মুকুল রায়।

আরও পড়ুনঃ প্রয়োজন হলে পশ্চিমবঙ্গে জারি হতে পারে রাষ্ট্রপতি শাসন, জানালেন রাজ্যপাল

৮৫ বছরের এক অসুস্থ রুগি মারা যাবার পরে; প্রায় দুশো জন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোক লরি করে এসে; ইমারজেন্সিতে ঢুকে কর্তব‍্যরত ও যারা কর্ত‍ব‍্যরত ছিলেন না; তাদের উপর আক্রমণ করে। এর ফলে দুজন জুনিয়ার ডাক্তার গুরুতর আহত হন।

ডাক্তার পরিবহ মুখোপাধ্যায়ের মাথার ফ্রন্টাল বোনে; ডিপ্রেসড ফ্র‍্যাকচার হয়েছে এবং তার অবস্থা বেশ সঙ্কটজনক। এই ঘটনায় কলকাতা সহ সারা রাজ্যে সমস্ত মেডিক্যাল কলেজে; কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে জুনিয়ার ডাক্তার সংগঠনগুলি।

আরও পড়ুনঃ জ্বলছে বসিরহাট, বিয়েতে ব্যস্ত ভোটের আগে মানুষকে প্রতিশ্রুতি দেওয়া নুসরাত জাহান

বুধবার থেকে সমস্ত সরকারি হাসপাতালের আউটডোর বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডাক্তারদের সংগঠনগুলি। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোক ঘটনায় অভিযুক্ত বলেই কি; মুখ্যমন্ত্রী মমতার তরফে কোন মন্তব্য নেই ঘটনা নিয়ে? প্রশ্ন তুলেছেন মুকুল রায়। একই প্রশ্ন বাংলার আমজনতারও।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন