৪ দিনের পুজো এখন ১৫ দিনের জমজমাট উৎসব

724

বিশেষ রিপোর্ট : দুর্গা পুজো কতদিনের? ১০ বছর আগে হলেও এই প্রশ্নের উত্তর ছিল ৪ দিন। সপ্তমী, অষ্টমী, নবমী ও দশমী। তবে এখন দুর্গাপুজো প্রায় ১৫ দিনের। মহালয়া থেকে দ্বাদশী। যত দিন যাচ্ছে দুর্গাপুজোর সময়ের পরিধি বাড়ছে। ৪ দিনের পুজো এখন ১৫ দিনের মনমাতানো জমজমাট উৎসব।

যত দিন যাচ্ছে, কলকাতার শারোদৎসবও এগোচ্ছে। কয়েক বছর আগেও ষষ্ঠীতে মণ্ডপগুলোয় দেবীদর্শন করা যেতো না। চতুর্থী, পঞ্চমীর আগে তো মণ্ডপে প্রতিমাই ঢুকতো না। ষষ্ঠীর আগে যদিও বা ঢুকতো, ঢাকা থাকতো দুর্গা দুর্গতিনাশিনীর চিন্ময়ী মুখ। ফলে প্রশ্নই উঠতো না দেবীদর্শনের।

যদিও ওই সময় ফাঁকায় ফাঁকায় নামকরা মণ্ডপ আর তাদের চিত্র-বিচিত্র রকমারি আলোর বাহার দেখে, তার বর্ণনা দিয়ে পাড়ার আড্ডায় ‘হিরো’ বনতেন অনেকে। তা সত্ত্বেও পুজোর আগেই পুজোয় মাতায় বেশিরভাগেরই মন সায় দিতো না।

ধীরে ধীরে সময়ের বিবর্তনে কলকাতার সাবেকী ঘরনা পরিবর্তন হতে থাকে থিমে। পঞ্চমী, চতুর্থী, এমনকি তৃতীয়াতেও শুরু হতে থাকে দেবীদর্শন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হয়ে পুজো উদ্বোধন শুরু করার পর মহালয়া থেকেই এখন পুজো শুরু হচ্ছে। কারণ, মহালয়া থেকেই প্রতিমা উদ্বোধন শুরু করেন তিনি।

আর এ বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালে মূলপূজার অনেক আগেই, মহালয়ায় দেবীপক্ষের সূচনার আগেই উৎসবে সামিল বাঙালি। কারণ এবার মহালয়ার আগেই উদ্বোধন হয়েছে পুজোর। মহালয়াতেই কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে রাস্তায় নেমেছে মানুষ। ভিড়ও বেড়েছে, বেড়েছে আলোর ছটাও। উৎসবে মাতোয়ারা মানুষ মূল পূজা শুরুর অনেক আগে থেকেই।

ফলে বাংলার অন্যতম প্রধান উৎসবকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা এতদিনকার ঐতিহ্য, ধারণা ও মিথ-সবই ভেঙে নতুন ট্রেন্ড গড়ছেন বাঙালিরাই। আগে সপ্তমী থেকে দশমী, চারদিন ও পরে ষষ্ঠী থেকে দশমী- এই পাঁচদিনেও আর বাধা রইল না পূজার আনন্দ-উচ্ছ্বলতা।

ছোট-বড় মণ্ডপে মহালয়ার পর থেকেই মানুষের আনাগোনা, উৎসাহ ও আগ্রহ দেখে বলা যায়, এ বছর থেকে বাঙালির সেরা এ উৎসব ১৫ দিনের! মহালয়া থেকে দ্বাদশী পর্যন্ত !

কিন্তু কেন এতো আগে থেকে দেবী দর্শনের তাড়া? পুজো উদ্যোক্তারা বলছেন, কলকাতায় এখন আর সেই একই ধরনের প্রতিমা বা সেই মান্ধাতা আমলের মতো মণ্ডপ তৈরি হয় না। সবকিছুর মধ্যে আধুনিকতা ও শিল্পের ছোঁয়া লেগেছে।

সারা কলকাতায় ৩ হাজার পুজোর মধ্যে অন্ততঃ ৫০০ মতো পুজোর চিন্তাধারা ভিন্ন। কারোর সঙ্গে কারো মিল নেই। অসাধারণ কিছু শিল্পকর্ম দেখা যায় এই ৫০০ পুজোয়। আরও কম করলে, উত্তর-দক্ষিণ মিলিয়ে অন্ততঃ ১০০ পুজো হয় দেখার মত। এ বলে আমায় দেখ তো ও বলে আমায় দেখ।

এরপর যোগ হয়েছে সল্ট লেক। শেষ কয়েক বছরে কলকাতা পুরসভার পুজোগুলোকে রীতিমত লড়াই দিচ্ছে সল্টলেকের বেশ কিছু ব্লকের পুজো। এসব কি মিস করা যায়?

তাই মহালয়া থেকে যদি কিছুটা আগেভাগেই উত্তর, দক্ষিণ, মধ্য কলকাতা, সল্টলেক প্রভৃতি এলাকার ঠাকুর দর্শন সেরে ফেলা যায় ! তাহলে পূজায় তুঙ্গে থাকা ওই চারটে দিনে ভিড়ের অত্যাচার সহ্য করতে হবে না।

ওই সময়টা পাড়ায় বা আত্মীয় বাড়িতে নিজের মতো করে কটা দিন কাটানো যাবে। তবে যে বা যারা যাই যুক্তি দিক না কেন, মহালয়া থেকে দেবীদর্শনে নেমে এ বছর পূজার আগেই উৎসব শুরু করে দিয়েছে কলকাতাবাসী।

আর তাতে, ৪ দিনের সেই পুজো এখন রীতিমতো ১৫ দিনের উৎসব। এরপর রাজ্য সরকারের বিশ্ববাংলা পুরস্কার পেলে রেড রোডে ঠাকুর নিয়ে শোভাযাত্রা আছে, তারপর তো বিসর্জন। সবমিলিয়ে ৪ দিনের দুর্গাপূজা সময়ের পরিধি বাড়াতে বাড়াতে এখন ১৫ দিনের উৎসবে রূপ নিয়েছে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন