বাংলায় শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি, মেধা তালিকায় নাম না থাকলেও মন্ত্রীর মেয়ের চাকরি

141
বাম থেকে ঘাসফুলে বাবা, মেধা তালিকায় নাম না থাকলেও মেয়ের চাকরি
বাম থেকে ঘাসফুলে বাবা, মেধা তালিকায় নাম না থাকলেও মেয়ের চাকরি

বাম থেকে ঘাসফুলে বাবা; মেধা তালিকায় নাম না থাকলেও মেয়ের চাকরি। ঠিক কী ঘটেছিল; ঘটনাপ্রবাহ কী? ১৭ অগাস্ট, ২০১৮; তৃণমূলে যোগ দেন ফরওয়ার্ড ব্লকের প্রাক্তন নেতা পরেশ অধিকারী। আর তারপরেই ২০১৮-তে স্কুলে চাকরি পান পরেশ-কন্যা অঙ্কিতা অধিকারী। মেধা তালিকায় নাম না থেকেও; চাকরি হয় পরেশের মেয়ে অঙ্কিতা! এমনকি তাঁকে কোন ইন্টারভিউ দিতে হয়নি। স্কুল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে, শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি নিয়ে; ফের কলকাতা হাইকোর্টে মামলা হল। পরেশ অধিকারীকে নিজাম প্যালেসে ডেকে; জেরা করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সিবিআই-কে। পাশাপাশি তাঁকে মন্ত্রীত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্যও; সুপারিশ করা হয়েছে রাজ্য সরকারের কাছে। যা এককথায় নজিরবিহীন।

বাম আমলে খাদ্যমন্ত্রী, তৃণমূল জমানায় রাজ্যের শিক্ষা-প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীর কন্যার; শিক্ষক পদে নিয়োগে অস্বচ্ছতার অভিযোগে; কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের হল। অভিযোগ দুর্নীতি করে মন্ত্রীর মেয়েকে, মেধা তালিকায় নাম না থাকা সত্ত্বেও; শিক্ষিকা পদে নিয়োগ করা হয়েছে।

একেবারে হাইজাম্প ফর্মুলায় যোগ্য প্রার্থীকে বঞ্চিত করে; মন্ত্রী পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষিকা হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাজ্যের মন্ত্রীকেও মামলার পক্ষ করার নির্দেশ দিয়েছে; বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ। মঙ্গলবার দুপুর ৩টের সময় মামলার শুনানি শুরু হয়; মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহায়ককে মামলার নোটিস ধরাতে বলেছে আদালত।

অভিযোগ, স্কুল সার্ভিস কমিশনের তালিকায় নাম ছিল না। কিন্তু তাঁর বাবা পরেশচন্দ্র অধিকারী ফরওয়ার্ড ব্লক থেকে তৃণমূলে যোগ দিতেই; তালিকায় এক নম্বরে পৌঁছে যান অঙ্কিতা অধিকারী। কোচবিহারে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক নিয়োগের জন্য; এসএসসি তালিকা প্রকাশ হয়েছিল। SC জাতিভুক্তদের জন্য মেধা তালিকার ওয়েট-লিস্টে; প্রথমে নাম ছিল ববিতা বর্মনের। অথচ পরে এসএসসি-র ওয়েবসাইটে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের তফসিলি জাতির জন্য সংরক্ষিত আসনের ওয়েট-লিস্টে; দেখা যায় ববিতার নাম চলে গিয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। প্রথম স্থানে রয়েছে পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীর নাম।

চাকরি প্রার্থীদের ইন্টারভিউয়ের সময়েও; অঙ্কিতাকে দেখা যায়নি বলেই অভিযোগ। হঠাৎ করে মেধাতালিকায় নাম ওঠা অঙ্কিতাকে মেখলিগঞ্জে তাঁর বাড়ির পাশের স্কুলে যোগ দিতে দেখে অবাক রাজ্যের হবু শিক্ষকরা। শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীর মেয়ে ঘুরপথে, বেআইনীভাবে; স্কুলে শিক্ষকতার চাকরি পেয়েছিলেন বলেই অভিযোগ। পরেশ অধিকারীকে এবার সিবিআই জেরার নির্দেশ দিল হাইকোর্ট।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন