লোকসভার আগেই রামমন্দির রায় দিতে সুপ্রিম কোর্টকে আর্জি মোদীর মন্ত্রীর

321
লোকসভার আগেই রামমন্দির রায় দিতে সুপ্রিম কোর্টকে আর্জি মোদীর মন্ত্রীর/The News বাংলা
লোকসভার আগেই রামমন্দির রায় দিতে সুপ্রিম কোর্টকে আর্জি মোদীর মন্ত্রীর/The News বাংলা

The News বাংলা: ভোট বড় বালাই। তারপর তিন রাজ্যে কংগ্রেসের কাছে ক্ষমতা হারিয়েছে বিজেপি। লোকসভা ভোট আর মাত্র ৩-৪ মাসের মধ্যেই। লোকসভা ভোটের আগেই অযোধ্যায় রাম মন্দির ইস্যুতে রায় দিতে এবার সুপ্রিম কোর্টকে আর্জি জানালেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

আরও পড়ুনঃ নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর ‘আজাদ লড়াই’কে সম্মান নরেন্দ্র মোদীর

রামমন্দির রায় না হওয়ায় শরিকরা ক্ষুব্ধ হচ্ছেন। শিবসেনার মত অনেকেই এনডিএ জোট ছাড়ার হুমকি দিচ্ছেন। সমালোচনা করছে সাধু সন্ত সংগঠন। রাম মন্দির নিয়ে ব্যপক চাপে মোদী সরকার। ভোট বৈতরণী পার হওয়ার জন্য রাম মন্দির রায় খুব দরকার বিজেপির, বলে সমালোচনা বিরোধীদের। আর তাই রাম মন্দির মামলার দ্রুত নিষ্পত্তি করতে এবার সুপ্রিম কোর্ট এর বিচারপতিদের আবেদনই জানিয়ে ফেললেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

আরও পড়ুনঃ স্বীকৃতি না রাজনৈতিক ফায়দা, নেতাজীকে নিয়ে বিতর্কে মোদী

শুধু তাই নয়, সেই সঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের কাছে তাঁর প্রশ্ন, শবরীমালা মন্দিরের ক্ষেত্রে চটজলদি সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হলে, অযোধ্যায় রামমন্দির মামলায় এত দেরি হচ্ছে কেন? লখনউতে অখিল ভারতীয় অধিভক্ত পরিষদের একটি সম্মেলনে এই কথা জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

আরও পড়ুনঃ নরেন্দ্র মোদীর হাতেই উদ্বোধন হচ্ছে ভারতের দীর্ঘতম দোতলা সেতু

অখিল ভারতীয় অধিভক্ত পরিষদের যে অনুষ্ঠানে এই বক্তব্য রেখেছেন রবিশঙ্কর প্রসাদ, সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এম আর শাহ, এলাহাবাদ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি গোবিন্দ মাথুর সহ অন্যান্য বিচারপতিরা।

আরও পড়ুনঃ শহীদ জওয়ানকে সম্মান নয়, সেনাকে পাথর ছুঁড়ে দেশদ্রোহীরাই ভারতে ‘নায়ক’

সেখানেই সরকারের তরফ থেকে নিজেই অনুরোধ করে বসেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী। অবশ্য শুধু দ্রুত মামলা নিষ্পত্তির অনুরোধ জানিয়েই থামেন নি রবিশঙ্কর প্রসাদ। তাঁর আরও প্রশ্ন, ‘৭০ বছর ধরে কেন আইনি জটিলতায় আটকে আছে রামজন্মভূমি নির্মাণের বিষয়টি’?

আরও পড়ুনঃ ‘মুসলিম’ নাম বদলে ‘রামরাজ্য’ আনতে উদ্যোগী মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ

আগামী ৪ জানুয়ারি সুপ্রিম কোর্টে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ এবং বিচারপতি এস কে কউলের বেঞ্চে ফের উঠবে এই মামলা। রাম জন্মভূমি বাবরি মসজিদ মামলার শুনানি। ২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের প্রেক্ষিতেই এই শুনানি হবে। এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায় ছিল বিতর্কিত এলাকার ২.৭৭ একর জমি সমান ভাবে ভাগ করে দেওয়া হবে নির্মোহী আখড়া, সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড এবং রাম লালা, এই তিনটি পক্ষের মধ্যে।

আরও পড়ুনঃ লোকঠকানির লোন মাপ, রাহুলকে লজ্জায় ফেলে আত্মঘাতী কৃষক

৪ জানুয়ারি এই মামলার শুনানি শুরু হওয়ার আগেই কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদের এই মন্তব্যে স্পষ্ট, রামমন্দির নির্মাণ নিয়ে ফের দেশ জুড়ে আন্দোলনের পরিবেশ তৈরি করতে চাইছে বিজেপি। সরকারে আসার পর চার বছর কেটে গেলেও মন্দির তৈরিতে এখনও পর্যন্ত এক পাও এগোতে পারেনি গেরুয়া শিবির।

আরও পড়ুনঃ নরেন্দ্র মোদীর হাতেই উদ্বোধন হচ্ছে ভারতের দীর্ঘতম দোতলা সেতু

‘রাম মন্দির হবেই’, ২০১৪ লোকসভা ভোটের আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মোদী সহ প্রায় সব বিজেপি নেতারা। কেন্দ্রে মোদী এবং রাজ্যে যোগী এই জোট হওয়ার পরেও মন্দির তৈরিতে বিজেপির ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে খোদ গেরুয়া শিবিরের মধ্যেই। সেই ব্যর্থতা ঢেকে ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের বৈতরণী পেরোতে ফের মন্দির আন্দোলনেই ফিরতে চাইছে বিজেপি, এমনটাই মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

আরও পড়ুনঃ EXCLUSIVE: কলকাতা থেকে পুলিশ ও ব্যবসায়ীদের টাকা যাচ্ছে জঙ্গিদের হাতে

কিন্তু, নিজেদের পুরনো অবস্থানে অনড় থাকে সুপ্রিম কোর্ট। অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভা ও অন্যান্যদের রাম মন্দির মামলার দ্রুত শুনানির দাবি খারিজ করে পুজোর আগেই সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয়, জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহেই অযোধ্যা মামলার শুনানির দিন ঠিক হবে। পরে ঠিক হয়, আগামী ৪ জানুয়ারি সুপ্রিম কোর্টে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ এবং বিচারপতি এস কে কউলের বেঞ্চে ফের উঠবে এই মামলা।

আরও পড়ুনঃ EXCLUSIVE: দিল্লীর নির্ভয়া ধর্ষণ কাণ্ডের পরেও নিরাপত্তাহীন কলকাতার বাস

২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়ে, অযোধ্যার রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদের ২.৭৭ একর বিতর্কিত জমিকে রাম লালা, সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড ও নির্মোহী আখাড়ার মধ্যে সমান তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছিল। এলাহাবাদ হাইকোর্টের ২০১০ সালের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে একাধিক মামলা হয় সুপ্রিম কোর্টে। সেই সব মামলারই শুনানি আবার শুরু হবে।

আরও পড়ুন: ২২ বছর পর ফের ভূস্বর্গে রাষ্ট্রপতি শাসন

সেই মামলায় ফের শুনানি শুরু হবে আগামী ৪ জানুয়ারি থেকে। এখানেও খুব দ্রুত রায় দেবার সম্ভাবনা নেই বলেই আইনী মহলের মত। আর লোকসভা ভোটের আগে সেই রাম মন্দির রায়কেই হাতিয়ার করে এগোতে চাইছে বিজেপি। আর তাই বিচারপতিদের প্রকাশ্যে অনুরোধ করতেও পিছপা হচ্ছেন না কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা। আইনমন্ত্রীর এই সরাসরি অনুরোধকে চরম সমালোচনা করা হয়েছে কংগ্রেস সহ বিরোধীদের তরফ থেকে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন